মঙ্গলবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২ আশ্বিন ১৪২৬

কোরবানির পশু জবাইয়ের ৩৪১ স্থান নির্ধারণ করেছে চসিক

প্রকাশিতঃ রবিবার, আগস্ট ১১, ২০১৯, ২:১৩ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম : কোরবানির পশু জবাইয়ের জন্য ৩৪১টি স্থান নির্ধারণ করেছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক)। চসিকের নির্ধারিত পশু কোরবানির স্থানগুলোতে পানির সরবরাহ, সেবাপ্রাপ্তির বসার স্থান এবং ব্লিচিং পাউডারের ব্যবস্থা রাখা হবে হবে বলে জানিয়েছে চসিকের পরিচ্ছন্নতা বিভাগ সূত্র।

ইতোমধ্যে কোরবানির দিন সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নিশ্চিতে প্রায় পাঁচ হাজার পরিচ্ছন্নতাকর্মীকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

সরু রাস্তা ও গলি থেকে বর্জ্য অপসারণের জন্য টমটম, হুইল ভেরু ও বর্জ্য অপসারণ কাজ তদারকিতে নিয়োজিত পরিচ্ছন্নতা বিভাগের সুপারভাইজারদের জন্য সিএনজিচালিত অটোরিকশার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

কোরবানি পশুর বর্জ্য অপসারণে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে জানিয়ে চসিকের প্রধান পরিচ্ছন্নতা কর্মকর্তা শফিকুল মান্নান ছিদ্দিকী বলেন, নগরে প্রায় এক লাখ ৬০ হাজার গরু এবং ৪০ হাজার ছাগল জবাই হতে পারে। কোরবানির দিন জবাইকৃত পশুর বর্জ্য হবে ৫ হাজার টন এবং এবং এর সঙ্গে নিয়মিত আড়াই হাজার টন গৃহস্থলি বর্জ্য আছে। বর্জ্য অপসারণে নাগরিকদের সুবিধার্থে একটি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। নগরীর কোথাও কোরবানির বর্জ্য কোরবানির দিন রাত ১০টার পরে পড়ে থাকতে দেখলে কন্ট্রোল রুমে কল করে তথ্য জানাতে পারবেন নগরবাসী। কন্ট্রোল রুমের নম্বর হচ্ছে ০৩১- ৬৩০৭৩৯, ০৩১-৬৩৩৬৪৯, ০১৭১২২৫২৬১৫, ০১৬৭৫২১৮৪৮৫। আগামী মঙ্গল ও বুধবারও কন্ট্রোল রুম খোলা থাকবে।

চসিক সূত্র জানায়, জবাইকৃত পশুর বর্জ্যগুলো বিকেল ৫টার মধ্যে প্রধান সড়ক থেকে এবং রাত ৮টার মধ্যে পুরো শহর থেকে অপসারণ করা লক্ষ্য। এ লক্ষ্যে পুরো শহরকে চারটি জোনে ভাগ করে চারজন কাউন্সিলরকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তবে কেন্দ্রীয়ভাবে বর্জ্য ব্যবস্থাপনার সার্বিক বিষয় তদারকি করবেন মেয়র।

একুশে/এসসি