মঙ্গলবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২ আশ্বিন ১৪২৬

বাংলাদেশ একটি দীর্ঘ আন্দোলনের ফসল : ভূমিমন্ত্রী

প্রকাশিতঃ রবিবার, আগস্ট ১৮, ২০১৯, ৮:৩৩ অপরাহ্ণ

ঢাকা : অধিকার আদায়ের লড়াইয়ে বঙ্গবন্ধু তাঁর সারাটা উৎসর্গ করে গেছেন জানিয়ে ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ বলেছেন, বাংলাদেশ একটি দীর্ঘ আন্দোলনের ফসল। যার নেতৃত্বে ছিলেন বঙ্গবন্ধু।

রোববার (১৮ আগস্ট) ভূমি মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

জাবেদ বলেন, স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু স্বাধীন বাংলাদেশের দায়িত্ব নেয়ার সময় এ দেশ সম্পূর্ণরূপে বিধ্বস্ত ছিল। এমনকি ওই সময় বিদেশী অনেকেই বাংলাদেশকে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করে বলত এ দেশ টিকবে না। তাদের সেই ধারণা মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর সেই দেশ এখন খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। দীর্ঘ আন্দোলনের পর বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা ১৯৯৬ সালে দেশকে নেতৃত্বের দেয়ার সুযোগ পান। তাঁর নেতৃত্বে পাঁচ বছর ছিল বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি স্বর্ণযুগ।

মন্ত্রী বলেন, ২০০৯ সাল হতে প্রধানমন্ত্রীর বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়কে দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলছে। এ তিন মেয়াদে বাংলাদেশের যে আমূল পরিবর্তন হয়েছে তা অবিশ্বাস্য। সকল পর্যায়ে মৌলিক চাহিদা পূরণ করে সফলতা অর্জন করার সঙ্গে সঙ্গে সামগ্রিক অর্থনীতিতে উন্নয়নের ধারা বজায় রাখার জন্য বিশ্বে বাংলাদেশ আজ একটি রোল মডেলে পরিণত হয়েছে। স্থিতিশীল সরকার থাকার ফলে বাংলাদেশ ইতোমধ্যে ৭ দশমিক ৯ শতাংশ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে।

ভূমিমন্ত্রী বলেন, ১৯৭৫’র ১৫ আগস্টে আমাদের স্বাধীনতা এবং সার্বভৌমত্বে আঘাত এসেছিল। জাতি হিসেবে আমাদের উপর এ ঘটনা একটি কলঙ্ক, যা কখনো মোচন হবে না। স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু তাঁর বলিষ্ঠ নেতৃত্বে যেভাবে একটি যুদ্ধ-বিধ্বস্ত দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন, ১৯৭৫ সালে তা থমকে দাঁড়ায়।

ভূমি সচিব মো. মাকসুদুর রহমান পাটওয়ারীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ভূমি আপীল বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. আব্দুল হান্নান, ভূমি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আনিস মাহমুদ, আতাউর রহমান, সিরাজ উদ্দিন ও প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. হযরত আলী।

পরে ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যসহ শাহাদত বরণকারী সকলের রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।

একুশে/এসসি