সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

তৌহিদি জনতার ৬ দফা দাবি মেনে নিলেন প্রশাসন

প্রকাশিতঃ সোমবার, অক্টোবর ২১, ২০১৯, ৯:৪৩ অপরাহ্ণ

ঢাকা : সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের এক যুবকের হ্যাক করা ফেসবুক আইডি থেকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে ‘ধর্ম নিয়ে আপত্তিকর পোস্ট’ নিয়ে ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলা সদরে রণক্ষেত্রে ঘটনায় ‘তৌহিদি জনতা’র ছয় দফা দাবি মেনে নিয়েছে প্রশাসন।

দাবি মেনে নেওয়ায় ‘সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদের’ ব্যানারে সোমবার বেলা ১১টায় ভোলা সরকারি স্কুল মাঠে প্রতিবাদ সমাবেশ বাতিল করা হয়।

সোমবার (২১ অক্টোবর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ভোলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক জেলা ‘ঈমান আক্বিদা সংরক্ষণ কমিটির’ সভাপতি মাওলানা বশির উদ্দিন বলেন, ভোলার নেতা তোফায়েল আহমেদ এমপি ও ডিসি মহোদয়ের অনুরোধে আমাদের সমাবেশ স্থগিত করেছি। তবে আমরা ৬ দফা দাবি দিয়েছি, তা আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে বাস্তবায়ন করতে হবে। না হলে আমরা কঠোর কর্মসূচি দেব।

ছয়টি দাবি হলো-

১. জেলা ও থানা থেকে এসপি এবং ওসিদের প্রত্যাহার করতে হবে। ২. ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ দাফন করার অনুমতি দিতে হবে। ৩. আহত লোকজনের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে। ৪. নিহত ব্যক্তিদের পরিবারকে আর্থিক সাহায্য দিতে হবে। ৫. অভিযুক্ত বিপ্লব চন্দ্র শুভর সঙ্গে যারা জড়িত, তাদের ফাঁসি দিতে হবে এবং ৬. গ্রেপ্তার করা ব্যক্তিদের মুক্তি দিতে হবে।

এই দাবি প্রশাসন মেনে নিয়েছে। তারা কেবল বলেছে, ফাঁসি নয়, যেই অপরাধী শনাক্ত হোক না কেন, প্রচলিত আইন অনুযায়ী তার শাস্তি হবে।

প্রসঙ্গত, ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলা সদরে রোববার সকালে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে গুলিতে অন্তত চারজন নিহত হয়েছে৷ এই ঘটনায় অর্ধশতাধিক আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে৷ তখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে চার প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়। বিজিবি, পুলিশ ও র‌্যাবের টহল জোরদার করার পর বিকালেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এ ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

একুশে/এএ