মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

আজ রাতে আসছে মইন উদ্দীন খান বাদলের মরদেহ

প্রকাশিতঃ শুক্রবার, নভেম্বর ৮, ২০১৯, ১১:১৫ পূর্বাহ্ণ


চট্টগ্রাম: ভারতের বেঙ্গালুরুতে নারায়ণা ইনস্টিটিউট অব কার্ডিয়াক সায়েন্সেস হাসপাতালে মৃত্যুবরণকারী সংসদ সদস্য ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) একাংশের কার্যকরী সভাপতি মইন উদ্দীন খান বাদলের মরদেহ আজ রাতে দেশে আসছে।

নয়াদিল্লীর বাংলাদেশ দূতাবাসের স্টাফ কাউন্সিলর রবি শর্মা জানান, মইন উদ্দিন খান বাদলের মরদেহ এয়ার ইন্ডিয়াযোগে ঢাকায় পাঠানোর সব প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে ইতিমধ্যে। সে অনুযায়ী কলকাতা হয়ে বাংলাদেশ সময় শুক্রবার রাত ৮:৩৫ মিনিটে ঢাকা শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছানোর কথা রয়েছে।

রবি শর্মা আরও জানান, শুক্রবার স্থানীয় সময় সকাল ১১:০৫ মিনিটে ব্যাঙ্গালুরু থেকে এয়ার ইন্ডিয়ার ফ্লাইট এআই-৭৭২ যোগে মরহুমের মরদেহ প্রথমে কলকাতার দিকে রওনা হবে। দুপুর ১:২৫ মিনিটে ফ্লাইটটি কলকাতা নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বিমানবন্দরে পৌঁছাবে। অন্যদিকে কলকাতা থেকে সন্ধ্যা ৭:০৫ মিনিটে এয়ার ইন্ডিয়ার কানেকটিক ফ্লাইট এআই-২৩০ যোগে ঢাকার দিকে রওনা দিয়ে বাংলাদেশ সময় রাত ৮:৩৫ মিনিটে ঢাকা শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করবে।

মেয়ে, মেয়ের জামাইসহ ঘনিষ্ঠ পাঁচ আত্মীয় মইন উদ্দিন খান বাদলের মরদেহের সঙ্গে একই ফ্লাইটে বাংলাদেশ আসবেন বলে তিনি আরও জানান।

পর দিন শনিবার (৯ নভেম্বর) সকাল ১১টায় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় তার প্রথম জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হবে এবং সেখানে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রীসহ রাষ্ট্রীয়ভাবে শোক জানানো হবে। সকল আনুষ্ঠানিকতা শেষে সেখান থেকে প্রধানমন্ত্রীর ব্যবস্থপনায় হেলিকপ্টারযোগে সাংসদ বাদলের মরদেহ সরাসরি নিয়ে আসা হবে চট্টগ্রাম নগরীর জমিয়াতুল ফালাহ জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে।

সেখানে দুপুর দুটার দিকে দ্বিতীয় জানাজার নামাজ শেষে সড়কপথে নিজ সংসদীয় আসন বোয়ালখালী সিরাজুল ইসলাম ডিগ্রি কলেজ মাঠে নেওয়া হবে। সেখানে বাদ আছর তৃতীয় জানাজা নামাজ শেষে সাংসদ বাদলের গ্রামের বাড়ি সারোয়াতলীর খান বাড়ির পারিবারিক কবরস্থানে বাবা-মায়ের কবরের পাশে মাগরিবের নামাজের পর তাকে সমাহিত করা হবে।

বেঙ্গালুরুতে নারায়ণা ইনস্টিটিউট অব কার্ডিয়াক সায়েন্সেস হাসপাতালে গতকাল বৃহস্পতিবার (৭ নভেম্বর) স্থানীয় সময় ভোর ৫টার দিকে মারা যান চট্টগ্রাম-৮ আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য মইন উদ্দীন খান বাদল। দুই বছর আগে তিনি স্ট্রোকে আক্রান্ত হন। পাশাপাশি ৬৭ বছর বয়সী এই রাজনীতিক হৃদ্যন্ত্রের জটিলতায়ও ভুগছিলেন। গত ১৮ অক্টোবর নিয়মিত চেকআপের জন্য তাঁকে নারায়ণা ইনস্টিটিউটে নেওয়া হয়। সেখানে তিনি প্রখ্যাত হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ দেবী শেঠীর তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন ছিলেন।