শুক্রবার, ১৪ আগস্ট ২০২০, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭

জীবনের বাস্তবতাকে ফুটিয়ে তোলে নাটক : সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিতঃ বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ১৬, ২০২০, ২:১৩ অপরাহ্ণ


চট্টগ্রাম: নাটক জীবনের বাস্তবতাকে ফুটিয়ে তোলে বলে মন্তব্য করেছেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ।

বুধবার রাত ৮টার দিকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় নাট্যকলা বিভাগে আয়োজিত চতুর্থ বার্ষিক নাট্যোৎসবে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ক্ষুধা-দারিদ্রমুক্ত আসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক মানবিক সোনার বাংলা বিনির্মাণের যে স্বপ্ন নিয়ে এ দেশ স্বাধীন করেছিলেন তাঁর সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে তাঁরই সুযোগ্য কন্যা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হয়ে নিরলসভাবে দেশ-জাতির উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন।

তিনি বলেন, সংস্কৃতির অন্যতম মাধ্যম হলো নাটক। নাটক জীবনের বাস্তবতাকে ফুটিয়ে তোলে। দেশ-জাতির যে কোন ক্রান্তিকালে সফল নাটক মঞ্চায়নের মাধ্যমে জাতি জাগরিত হয়।

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, নাটক শিক্ষার্থীদের মেধা-মনন ও সৃজনশীল প্রতিভা বিকাশে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

মাননীয় প্রতিমন্ত্রী চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জ্ঞান-গবেষণার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে অধিকতর সম্পৃক্ত হয়ে নিজেদের সৎ, দক্ষ, যোগ্য ও আলোকিত মানবসম্পদে পরিণত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, আমাদের তরুণ সমাজই বিনির্মাণ করবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু তনয়া আধুনিক বাংলাদেশের রূপকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যতদিন রাষ্ট্র পরিচালনায় থাকবেন ততদিন পথ হারাবে না বাংলাদেশ। প্রতিমন্ত্রী দেশের উন্নয়ন-অগ্রগতির এই চলমান ধারা অব্যাহত রাখতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সকলকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানান।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবাষির্কী উপলক্ষ্যে মুজিববর্ষ উদযাপন এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় নাট্যকলা বিভাগের উদ্যোগে ৩ দিনব্যাপি (১৫-১৭ জানুয়ারি) ‘মুক্তির চেতনায় শিল্পীত সৃজন ৪র্থ বার্ষিক নাট্যোৎসব ২০২০’ শুরু হয়েছে।

নাট্যোৎসব উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার। এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চবি কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো. সেকান্দর চৌধুরী, কবি ও সাংবাদিক আবুল মোমেন, বিটা’র পরিচালক নাট্যজন শিশির দত্ত এবং জেলা শিল্পকলা একাডেমি চট্টগ্রামের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম। স্বাগত বক্তব্য রাখেন নাট্যকলা বিভাগের প্রফেসর ড. কুন্তল বড়ুয়া।

চবি নাট্যকলা বিভাগের সভাপতি শামীম হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়। অনুষ্ঠানে নাট্যকলা বিভাগের স্নাতক সম্মান পরীক্ষায় সর্বোচ্চ নম্বরপ্রাপ্ত নোভা চক্রবর্তীকে নাট্যজন শান্তনু বিশ্বাস স্মৃতি বৃত্তি প্রদান করা হয়।

উল্লেখ্য চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্মুক্ত মঞ্চ ও নাট্যকলা বিভাগের জিয়া হায়দার স্টুডিওতে ৩ দিনব্যাপি আয়োজিত নাট্যোৎসবে মুক্তিযুদ্ধ ও রবীন্দ্রনাথের সাহিত্যকর্মের উপর ১১টি নাটকের প্রদর্শনীসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের পরিবেশনা অনুষ্ঠিত হবে।