রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১১ ফাল্গুন ১৪২৬

শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন না করার জন্য অনেকেই উঠে-পড়ে লেগেছে : ঊষাতন

প্রকাশিতঃ বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ২৩, ২০২০, ৮:৫৮ অপরাহ্ণ


রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি: শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন না করার জন্য অনেকেই উঠে-পড়ে লেগেছে বলে মন্তব্য করেছেন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সহ-সভাপতি ঊষাতন তালুকদার।

বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) সকালে রাঙ্গামাটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি সাংস্কৃতিক ইন্সটিটিউট সম্মেলন কক্ষে পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের ২২তম বার্ষিক শাখা সম্মেলন ও কাউন্সিল উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ঊষাতন তালুকদার বলেন, চুক্তি বাস্তবায়ন না করার জন্য অনেকেই উঠে-পড়ে লেগেছে। যার ফলে পার্বত্যাঞ্চলে অস্থিতিশীল পরিবেশ বিরাজ করছে। এর স্থিতিশীলতা ফিরিয়ে আনতে হলে, পার্বত্যাঞ্চলে যে সমস্যা এটি শান্তিপূর্ণভাবে চুক্তি বাস্তবায়নের মাধ্যমে সমাধান করতে হবে। পার্বত্য চট্টগ্রামে যে চাঁদাবাজি, অস্ত্রবাজি চলে তা কারোর কাম্য নয়। কিন্তু চাঁদাবাজি, অবৈধ অস্ত্রধারী ধরতে হলে জনগণকে সাথে নিয়ে ধরতে হবে। জনগণকে বিচ্ছিন্ন করে, তাদের আলাদা করে সরকার যত শক্তিশালী হোক না কেন তা কখনো সম্ভব নয়।

তিনি আরও বলেন, পার্বত্যাঞ্চলে যারা বাংলা ভাষাভাষি রয়েছেন তাদের বিষয়গুলো আমলে রেখে, তাদের সমস্যাগুলোও আমলে রেখে একটি সুষ্ঠু সমাধানের দিকে যেতে হবে। এটিকে অহেতুক ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে মনগড়াভাবে রেখে এ বিষয়টিকে নিলে কারোরই মঙ্গল হওয়ার কথা নয়। চুক্তি বাস্তবায়ন হলে নাকি এখানকার বাংলা ভাষাভাষিদের ক্ষতি হবে। তাই আমাদের বুঝতে হবে এবং সহযোগিতা রাখতে হবে। যাতে করে চুক্তি বাস্তবায়ন করা যায়।

বিশেষ অতিথি পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি সুমন মারমা বলেন, পাহাড়ি ছাত্র ছাত্রীদের তাদের সুপ্ত প্রতিভা বিকাশ ঘটাতে হবে কিন্তু সেই সুপ্ত প্রতিভা বিকাশ ঘটানোর জন্যে তাদেরকে মাদকমুক্ত করতে হবে। পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের নেতৃবৃন্দের নিজেদের সজাগ হওয়ার পাশাপাশি ছাত্র সমাজকে সচেতন করতে হবে।

এসময় পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের সভাপতি রিন্টু চাকমার সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি সুমন মারমা,পার্বত্য চট্টগ্রাম যুব সমিতির জেলা সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সাগর ত্রিপুরা নান্টু. হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সাধারণ সাম্পাদিক্ াশান্তিদেবী তঞ্চঙ্গ্যা প্রমূখ।

এরপর মিলন কুসুম তঞ্চঙ্গ্যাকে সভাপতি, জগদীশ চাকমাকে সাধারণ সম্পাদক ও ইয়াংরাওকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ২৭ সদস্য বিশিষ্ট রাঙ্গামাটি জেলা কমিটি ঘোষণা করা হয়। নতুন কমিটিকে শপথবাক্য পাঠ করান পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি শ্রী সুমন মারমা।