সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৫ ফাল্গুন ১৪২৬

দেশে জঙ্গিবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার স্থান নেই : মেয়র নাছির

প্রকাশিতঃ শুক্রবার, জানুয়ারি ২৪, ২০২০, ৯:২৫ অপরাহ্ণ

 

চট্টগ্রাম : ‘ধর্ম যার যার উৎসব সবার। এদেশে সংখ্যালঘু বলতে কিছুই নেই। আমরা সবাই বাঙালি ও প্রত্যেক ধর্মাবলম্বীরা দীর্ঘকাল ধরে সহাবস্থানে থেকে নিজ নিজ ধর্মকর্ম পালন করে আসছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে সাড়া দিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছে বলেই আমরা স্বাধীনতা অর্জন করেছি।’

আজ শুক্রবার (২৪ জানুয়ারি) বেলা ১২টায় নগরীর আন্দরকিল্লাস্থ জেএম সেন হলে আয়োজিত যোগাচার্য পরমহংস শ্রী শ্রীমৎ স্বামী জ্যোতিশ্বরানন্দ গিরি মহারাজের ১১১তম আবির্ভাব উৎসবের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে  সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন এসব কথা বলেন।

সিটি মেয়র বলেন, জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার স্থান বাংলাদেশে নেই। অসাম্প্রদায়িক ধর্ম নিরপেক্ষ রাষ্ট্র হলো বাংলাদেশ। কোন ধরনের গুজবে কান না দিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়নের মহাসড়কে সামিল হয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে এগিয়ে আসতে হবে।

তিনি বলেন, ধর্ম চেতনা ও ধর্মবোধ মানুষকে সত্য সনাতন সুন্দরের পথে পরিচালিত করার ফলে সমাজ থেকে অন্যায় অনাচার দূরিভূত হয়। এখানে মঠ-মন্দির শুধু ধর্ম চর্চার সাধনা করে না। মানুষের মধ্যে পারস্পরিক বিশ্বাস, শ্রদ্ধাবোধ সৃষ্টি ও সভ্যতাকে এগিয়ে নিতে সহায়তা করে। ধর্মবোধ মানুষকে ন্যায়ের শিক্ষা দিয়ে সভ্য করেছে।

সীতাকুণ্ড শংকর মঠ ও মিশনের অধ্যক্ষ শ্রীশ্রীমৎ স্বামী তপনানন্দ গিরি মহারাজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আবির্ভাব উৎসবে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর উৎসব উদযাপন পরিষদের কার্যকরী সভাপতি লায়ন অদুল কান্তি চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক লায়ন সন্তোষ কুমার নন্দী, অতিরিক্ত সম্পাদক লায়ন দিলীপ কুমার শীল, শ্রীমৎ জগদীশ্বরান্দ মহারাজ, অনিতা চৌধুরী, অধ্যাপক কেশব কুমার চৌধুরী, অজিত কুমার শীল, কাজল কান্তি পাল, মিন্টু কুমার শীল, সাংবাদিক রনজিত কুমার শীল প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের পূর্বে সকাল সাড়ে ১০টায় বেলুন ও শান্তির কপোত উড়িয়ে শ্রী শ্রীমৎ স্বামী জ্যোতিশ্বরানন্দ গিরি মহারাজের ১১১তম আবির্ভাব উৎসবের উদ্বোধন করেন শংকর মঠ ও মিশনের অধ্যক্ষ শ্রীশ্রীমৎ স্বামী তপনানন্দ গিরি মহারাজ।

একুশে/এএ