বুধবার, ১ এপ্রিল ২০২০, ১৮ চৈত্র ১৪২৬

প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশ-রাশিয়া সম্পর্ক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে যাবে : সুজন

প্রকাশিতঃ সোমবার, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২০, ৭:৪৪ অপরাহ্ণ

 

 

চট্টগ্রাম : মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ রাশিয়ার সম্পর্ক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে যাবে বলে মত প্রকাশ করেছেন জনদুর্ভোগ লাঘবে জনতার ঐক্য চাই শীর্ষক নাগরিক উদ্যোগের প্রধান উপদেষ্টা ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন।

সুজনের নেতৃত্বে নাগরিক উদ্যোগের একটি প্রতিনিধি দল রোববার বিকেলে জামালখান প্রেসক্লাবস্থ রাশিয়ান অনারারি কনসাল এর দফতরে রাশিয়ান রাষ্ট্রদূত আলেকজান্ডার আই ইগনাটভ এর সাথে শুভেচ্ছা বিনিময়কালে উপরোক্ত মন্তব্য করেন।

এ সময় খোরশেদ আলম সুজন বলেন, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালে পাকিস্তানী সেনাবাহিনী যখন যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তায় বিনা উসকানিতে রাতের আঁধারে মানুষ হত্যা করতে শুরু করে ঠিক তখনই বাংলাদেশের জনগণের পক্ষে জাতিসংঘে অবস্থান নেন রাশিয়া। বাংলাদেশের পক্ষে রাশিয়া ছিল বলেই পাকিস্তানের পক্ষে বঙ্গোপসাগরে সপ্তম নৌ-বহর পাঠানোর সাহস পায়নি যুক্তরাষ্ট্র। বাংলাদেশের বিজয় অনিবার্য দেখে পাকিস্তানের মিত্র যুক্তরাষ্ট্র ও চীন যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব তুললে রাশিয়া সেই প্রস্তাবে ভেটো দেয়। তাছাড়া যুদ্ধের পর চট্টগ্রাম বন্দর থেকে মাইন ও ধ্বংসাবশেষ অপসারণে রাশিয়ার সামরিক বিশেষজ্ঞরা ব্যাপক অবদান রাখে। কিন্তু দুঃখজনকভাবে বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু রাশিয়ার সঙ্গে কার্যকর যোগাযোগ রক্ষা করেনি বঙ্গবন্ধু পরবর্তী সরকার প্রধানরা। এতে করে বাংলাদেশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। দেশটির সঙ্গে খারাপ আচরণও করা হয়েছে।

বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নততর বাংলাদেশ বিনির্মাণে একের পর এক মেগা প্রকল্পসমূহের প্রয়োজনীয় সহায়তা দিচ্ছে রাশিয়া। সুজন কৃতজ্ঞচিত্তে রাশিয়ার ঐতিহাসিক অবদানের কথা স্বীকার করে অতীতের মতো ভবিষ্যতেও রাশিয়াকে বাংলাদেশের পাশে থাকার উদাত্ত আহ্বান জানান।

রাশিয়ান রাষ্ট্রদূত আলেকজান্ডার আই ইগনাটভ সুজনকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, বাংলাদেশ রাশিয়া সম্পর্ক অনেক দিনের। দুদেশের এ সম্পর্ক রাজনীতি, অর্থনীতি ও সাংস্কৃতিক উন্নয়নে অবদান রাখছে। রাশিয়া সরকার বাংলাদেশে পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র তৈরিতে বড় ধরনের বিনিয়োগ করছে এবং এটা অব্যাহত থাকবে। বর্তমানে দুদেশের মধ্যে অনেক সমঝোতাও চুক্তি হয়েছে। শিল্পবাণিজ্যের প্রসারেও বিনিয়োগ করছে রাশিয়া। ভবিষ্যতে রাশিয়া আইসিটি, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি, ওষুধ শিল্প এবং সামরিক খাতে বিনিয়োগে আগ্রহী। দুদেশের সুসম্পর্কের মাধ্যমে এসব বিনিয়োগ কার্যক্রমকে এগিয়ে নেয়া সম্ভব হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

রাষ্ট্রদূত আলেকজান্ডার আই ইগনাটভ আরও বলেন, রাশিয়া সরকার বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের বৃত্তি দিচ্ছে। এ দেশের অনেক শিক্ষার্থী রাশিয়ায় গিয়ে উচ্চতর ডিগ্রি নিচ্ছেন। তারা পরমাণু বিদ্যাসহ বিভিন্ন বিষয়ে দক্ষ হয়ে গড়ে উঠছেন। ভবিষ্যতে রাশিয়া সরকার এ সুযোগ আরও বাড়াবে।

এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রাশিয়ান অনারারি কনসাল স্থপতি আশিক ইমরান, হাজী মোঃ ইলিয়াছ, আব্দুর রহমান মিয়া, নাগরিক উদ্যোগের সদস্য সচিব হাজী মোঃ হোসেন, সাইদুর রহমান, নিজাম উদ্দিন, এ.এস.এম জাহিদ হোসেন, রকিবুল আলম সাজ্জী, আশিকুননবী চৌধুরী, এম ইমরান আমেদ ইমু প্রমূখ। ছবির ক্যাপশনঃ রাশিয়ান রাষ্ট্রদূত আলেকজান্ডার আই ইগনাটভ এর সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করছেন নাগরিক উদ্যোগের প্রধান উপদেষ্টা ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন।