বুধবার, ১ এপ্রিল ২০২০, ১৮ চৈত্র ১৪২৬

আ.লীগ মনোনীত কাউন্সিলর প্রার্থীকে হত্যার হুমকি

প্রকাশিতঃ সোমবার, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২০, ৯:৪৯ অপরাহ্ণ

 

চট্টগ্রাম : আসন্ন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে সামনে রেখে কাউন্সিলর পদ থেকে সরানোর জন্য ৪নং চান্দগাঁও ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর ও এবারের আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী মো. সাইফুদ্দিন খালেদকে একটি প্রভাবশালী মহল প্রকাশ্যে হত্যার হুমকি ও মিথ্যাচার করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

সোমবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এ অভিযোগ তুলেন ৪নং চান্দগাঁও ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী মো. সাইফুদ্দিন খালেদ।

ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে ৪নং চান্দগাঁও ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী মো. সাইফুদ্দিন খালেদ লিখিত বক্তব্যে বলেন, গত বেশ কিছুদিন ধরে একটি চিহ্নিত মহল গুটি কয়েক মিডিয়াকে ব্যবহার করে আমাকে ও আমার সহকর্মীদের নিয়ে মিথ্যা, বানোয়াট ও মানহানিকর প্রতিবেদন প্রকাশ করে আসছে। আমি ছাত্রলীগের রাজনীতি করে দীর্ঘ ত্যাগ সংগ্রামের মধ্য দিয়ে আজ চান্দগাঁও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক হয়েছি। চান্দগাঁও-এর জনপ্রতিনিধি কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত হয়ে এলাকার ব্যাপক উন্নয়ন সাধন করেছি। অত্যন্ত স্বচ্ছতার সাথে আমি অর্পিত দায়িত্ব পালন করে সাধারণ মানুষের সেবা করে যাচ্ছি।

‘আমার প্রয়াত পিতা কোনদিন কোন রাজনীতির সাথে যুক্ত ছিলেন না। অথচ হঠাৎ করে একটি প্রভাবশালী মহল আমার প্রয়াত পিতাকে রাজাকার আখ্যায়িত করে চসিক নির্বাচনে শেখ হাসিনার মনোনীত প্রার্থীকে প্রকাশ্যে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছে। ৪নং চান্দগাঁও ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. সাইফুদ্দিন খালেদের দাবি, অর্থ ও পেশী শক্তির বলে আজ তারা চান্দগাঁওয়ের স্বঘোষিত সম্রাট দাবি করছেন। পৌরানিক কাহিনীর মতই আজ হঠাৎ করে পর্দায় একজন রাজপুত্র আবির্ভূত হয়ে বললেন তাদের নির্বাচিত ব্যক্তিকেই ওয়ার্ড কাউন্সিলর করতে হবে। জনগণ যেন তার প্রজা। তার নির্দেশে সবাই ২৯ মার্চ সম্রাটের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে হবে। অন্যথায় তিনফুট মাটিতে গেঁড়ে ফেলবেন। আমরা এই মহলটির অপতৎপরতায় আতঙ্কিত। আইনের শাসনকে প্রকাশ্যে হুমকি দেয়ার এই মহাশক্তিধর রাজপুত্রের শক্তির মূল উৎস জাতি জানতে চায়। তাকে এখনি আইনের আওতায় না আনলে আসন্ন চসিক নির্বাচন বাধাগ্রস্ত হতে পারে।’

তিনি জানান, চসিক নির্বাচনকে সামনে রেখে কাউন্সিলরদের মত এক ছোট জনপ্রিতিনিধির পদ নিজেদের বাগে আনতে ওই মহলটি বেশ কিছুদিন ধরে গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। তাদের অবৈধ অর্থের জোয়ারে বিবেকবান সাংবাদিকরা সায় না দিলেও ষড়যন্ত্র থেমে থাকেনি। চান্দগাঁও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের একজন তৃণমূলের যোগ্য নেতা মনে করে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ নেতারা সবকিছু বিচার বিশ্লেষণ করে আমাকে ৪নং চান্দগাঁও ওয়ার্ডে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দিয়েছেন।

‘যেখানে বিশ্বনন্দিত নেতা আমাদের দলের সভানেত্রী এসব মনোনয়ন যাচাই বাছাই করেছেন সেখানে চান্দগাঁওয়ের একটি মহল কেন হঠাৎ করে আমার বিরোধিতা করছেন তা রহস্যাবৃত। এসব বিষয়ে এখন তদন্ত হওয়া জরুরি। তারা আমাকে কাউন্সিলর পদ থেকে যে কোন প্রকারে সরাতে সর্বশক্তি নিয়ে মাঠে নেমেছে। ইতোমধ্যে তারা কোটি টাকার তহবিল নিয়ে চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের সাথে যোগাযোগ শুরু করেছে। কয়েকজন ইতোমধ্যে এলাকায় এসে শো-ডাউনও দিয়েছে। তবে আমি তাতে ভীত নই।’

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ৪নং চান্দগাঁও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক নুর মোহাম্মদ নুরু, যুগ্ম-আহ্বায়ক নিজামউদ্দিন নিজু, সদস্য- আবুল কালাম ফরিদি, মো. সেলিম রেজা, আবু হানিফ চৌধুরী, শোয়াইব মিতু, শওকত হোসেন, নুরুল আবছার, লৎফুল করিম সোহেল, আবুল কালাম মজুমদার, ফখরুল আলম রিপন, বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বাবর, নুরুল আব্বাস প্রমুখ।

একুশে/জেএইচ