সোমবার, ৩০ মার্চ ২০২০, ১৬ চৈত্র ১৪২৬

পুলিশ থাকে ডালে, বিচারক হাঁটে পাতায়!

প্রকাশিতঃ বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২০, ১০:৪৩ অপরাহ্ণ


চট্টগ্রাম: পুলিশের হ্যান্ডকাফ নিয়ে চলাফেরা করতেন সালাউদ্দিন। পরিচয় দিতেন বায়েজিদ বোস্তামী থানা পুলিশের সোর্স। এ নিয়ে গণমাধ্যমে খবর প্রচার হলে সালাউদ্দিনকে গ্রেপ্তার করতে বাধ্য হয় পুলিশ।

দণ্ডবিধির ১৭০, ৪১৯ ও ৫০৬ ধারায় অভিযুক্ত করে গত মঙ্গলবার সালাউদ্দিনকে আদালতে হাজির করে পুলিশ। যে তিনটি ধারায় অভিযুক্ত করা হয়েছে সবগুলোই জামিনযোগ্য।

অভিযোগ উঠে, বেপরোয়া চলাফেরা করা বায়েজিদ বোস্তামী থানার অন্তত দুইজন এসআইয়ের ‘কাছের মানুষ’ সালাউদ্দিন। বিভিন্ন ব্যক্তিকে জিম্মি করে টাকা আদায়সহ নানা অপকর্মে জড়িত ছিলেন তিনি। একেবারে নিরূপায় হয়ে সালাউদ্দিনকে ধরেছে বায়েজিদ বোস্তামী থানা পুলিশ।

এদিকে হ্যান্ডকাফসহ ধরা পড়া সালাউদ্দিনকে জামিনযোগ্য ধারায় আদালতে হাজির করার ঘটনায় বিষ্মিত হন সংশ্লিষ্টরা। কেউ কেউ মন্তব্য করেন, সালাউদ্দিনকে লোক দেখানো গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। যাতে দ্রুত সময়ের মধ্যেই তার জামিন হয়ে যায় সেজন্যই পুলিশ জামিনযোগ্য ধারায় চালান দিয়েছে।

সালাউদ্দিনকে গ্রেপ্তারের ঘটনায় দায়ের করা মামলার বাদী হয়েছেন বায়েজিদ বোস্তামী থানার এসআই গোলাম মো. নাসিম হোসেন। আর মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পান এসআই আবছার উদ্দিন রুবেল। দুইজনের বিরুদ্ধেই বিভিন্ন সময়ে সাধারণ মানুষকে হয়রানি করার অভিযোগে গণমাধ্যমে সংবাদ এসেছে।

এদিকে বৃহস্পতিবার সালাউদ্দিনের জামিন চাওয়া হয়। জামিনযোগ্য ধারা হওয়ায় চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট খায়রুল আমিনও দুই হাজার টাকা বন্ডে তার জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন। তবে জামিনের ক্ষেত্রে আরেকটি শর্ত জুড়ে দেন বিচক্ষণ বিচারক। সেটা হচ্ছে, জিম্মাদার হতে হবে সিটি মেয়রকে। বিচার বিভাগে এ ধরনের আদেশ বিরল বলছেন সংশ্লিষ্টরা।

আদালত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সামান্য ঘটনায় জামিন অযোগ্য ধারা যুক্ত করে দিতে পুলিশ যেখানে পটু, সেখানে হ্যান্ডকাফসহ গ্রেপ্তার হওয়া সালাউদ্দিনকে চালান দিয়েছে জামিনযোগ্য ধারায়। অস্বাভাবিক বিষয়টি ধরতে পেরে বিচক্ষণতার পরিচয় দিয়ে মেয়রের জিম্মায় জামিন আদেশ দিয়েছেন বিচারক। এ জামিন আদেশ দেখে একজন আদালত কর্মচারী বললেন, পুলিশ থাকে ডালে, বিচারক হাঁটে পাতায়!

মেয়রের জিম্মায় সালাউদ্দিনের জামিন মঞ্জুরের বিষয়টি একুশে পত্রিকাকে নিশ্চিত করে নগর পুলিশের প্রসিকিউশন শাখায় দায়িত্বরত একজন এসআই (উপ-পরিদর্শক) বলেন, সালাউদ্দিনের জন্য মেয়রের জিম্মাদার হওয়ার কারণ দেখছি না। মেয়র জিম্মাদার না হলে আপাতত সালাউদ্দিনের মুক্তি হবে না। তবে আজকের আদালতের আদেশ পরিবর্তন হলে তখন সালাউদ্দিন মুক্তি পাবেন।