শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

কমিশনার বললেন হোম সার্ভিস, ওসি করছেন ট্রল!

প্রকাশিতঃ রবিবার, মার্চ ২৯, ২০২০, ৯:৪৬ অপরাহ্ণ


চট্টগ্রাম : চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ (সিএমপি) কমিশনার বলছেন, সবাইকে ঘরে থাকতে। কিছু লাগলে পুলিশকে জানাতে। প্রয়োজনীয় পণ্য পৌঁছে দিতে হোম সার্ভিসের ব্যবস্থা করেছেন বলেও জানালেন পুলিশ কমিশনার।

শুধু তাই নয়, হোম সার্ভিস দিতে গতকাল শনিবার ‘ডোর টু ডোর শপ’ নামের কার্যক্রমও শুরু করে সিএমপি; হটলাইন ০১৪০০৪০০৪০০ ও ১৬টি থানার নাম্বারে ফোন করলে প্রয়োজনীয় পণ্য নিয়ে পুলিশ বাসায় হাজির হবে বলেও প্রচারণা চালানো হয়। এর প্রেক্ষিতে আজ রোববার খুলশী থানার ওসির কাছে এক ব্যক্তি ফোন করে চাইলেন রুই মাছ, তাতেই মেজাজ সামলাতে পারেননি তিনি।

রোববার সন্ধ্যায় ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে খুলশী থানার ওসি প্রণব চৌধুরী লিখেছেন, “উনি মৎস্য ব্যতীত ভাত খেতে পারেন না:- আমরা বলেছিলাম ‘স্টে হোম’ প্রোগ্রামের অংশ হিসেবে সর্বসাধারণকে নিত্য ব্যবহার্য দ্রব্যাদি যেমন চাল ডাল আটা ময়দা লবণ চিনি ওষুধপত্র যা না হলে একেবারেই নয় সেইসব দ্রব্যাদি হোম সার্ভিসের মাধ্যমে সরবরাহ করব। এই দুর্যোগ সময়ে কিছুক্ষণ আগে এক ব্যক্তি ফোন করে আমাকে বললেন উনার এক কেজি রুই মাছ লাগবে……..!!!!!!! এবার বলেন কি উত্তর দিব………?!!!!”

এই স্ট্যাটাস নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আলোচনা-সমালোচনা চলছে। ওসির বন্ধু তালিকায় থাকা কেউ কেউ রুই মাছ চাওয়া ওই ব্যক্তিকে কটাক্ষ করছেন, কুরুচিপূর্ণ ভাষায় আক্রমণ করছেন। ইমরান উদ্দিন সিদ্দিক লিখেছেন, “সালার পুতরে থানায় এনে রুই, কাতলা, মৃগেল সব খাওয়ান।” সাজ্জাদুর রহমান লিখেছেন, “শালাকে লকাপে ঢুকিয়ে দুইডা গুতা মার।”

আবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এই সব ট্রলকারীর বিপরীতে লিখেছেন কেউ কেউ। বাংলাদেশ প্রতিদিনের সাংবাদিক মো. সেলিম জাভেদ লিখেছেন, “ওই ভদ্রলোক তো আর সেন্ডি কিংবা দাতিনা কোরাল চায়নি। ব্যবস্থা করে দিলে কি এমন অসুবিধা হতো দাদা। আমাদের কবে শুভ বুদ্ধির উদয় হবে।”

জালাল উদ্দিন সাগর নামের একজন লিখেছেন, “মৎস্য জাতীয় প্রাণী কিন্তু হোম সার্ভিসের আওতাভুক্ত।” আবছার উদ্দিন নামের একজন লিখেন, “রুই কাতলা তো কমন মাছ, যদি বলতো লাক্ষা বা পদ্মার ইলিশ তা হলে উত্তর দেওয়াটা জটিল হয়ে যেত।”

পাঁচলাইশ থানার ওসি আবুল কাশেম ভুঁইয়া লিখেছেন, “জাস্ট পাঠাই দেন তো।”