শুক্রবার, ৫ মার্চ ২০২১, ২১ ফাল্গুন ১৪২৭

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুরকারীদের বিচার দাবি চবি শিক্ষক সমিতির

প্রকাশিতঃ মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৮, ২০২০, ৩:৪২ অপরাহ্ণ


চবি প্রতিনিধি : কুষ্টিয়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য ভাঙচুরের প্রতিবাদ জানিয়েছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) শিক্ষক সমিতি। সেই সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান তারা।

মঙ্গলবার (৮ ডিসেম্বর) চবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর মো. এমদাদুল হক ও সাধারণ সম্পাদক মনজুরুল আলমের স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এই প্রতিবাদ জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, অত্যন্ত উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার সাথে আমরা লক্ষ্য করছি যে, বিগত কয়েকদিন যাবত একটি সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য স্থাপনের বিরুদ্ধে উসকানিমূলক ও বিভ্রান্তিকর বক্তৃতা ও বক্তব্য প্রদান করছে। এর মাধ্যমে তারা জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অপ্রতিরোধ্য গতিতে উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় এগিয়ে চলা বাংলাদেশের স্থিতিশীল পরিস্থিতিকে অস্থিতিশীল করার হীন উদ্দেশ্যে লিপ্ত রয়েছে।

‘এরই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধু কর্তৃক ‘পূর্ব পাকিস্তানকে’ “বাংলাদেশ” নামকরণের দিবসে ৫ ডিসেম্বর (শুক্রবার) রাত আনুমানিক ২টায় কুষ্টিয়া পৌরসভার পাঁচ রাস্তার মোড়ে নির্মানাধীন বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের উপর কাপুরুষোচিত হামলা চালিয়ে ভাস্কর্যটির অংশবিশেষ ভেঙে ফেলেছে। মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর এ ঔদ্ধত্য ও অপতৎপরতা জাতির জনকের নেতৃত্বে মুক্ত এ স্বাধীন বাংলাদেশে সহ্য করা হবে না।’

ভাস্কর্য মানুষের নান্দনিকতাবোধ প্রকাশের এক চিরন্তন মাধ্যম যা মানব সভ্যতার ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সাংস্কৃতিক উৎকর্ষতার প্রতীক স্বরূপ উল্লেখ করে বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ভাস্কর্যকে মুর্তির সাথে এক করে বক্তব্য প্রদান বাংলাদেশের উদার, অসাম্প্রদায়িক ও গণতন্ত্রমনা আপামর ধর্মপ্রাণ জনগণকে বিভ্রান্তিতে ফেলে দেয়ার উদ্দেশ্যে এক শ্রেণীর ধর্মীয় উগ্রবাদীদের হীন মানসিকতারই বহি:প্রকাশ।

বিবৃতিতে বলা হয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি বিশ্বাস করে, জাতির জনকের নির্মানাধীন ভাস্কর্যের ক্ষতিসাধনকারী ও ভাস্কর্য বিরোধীতাকারীদের সাথে এ দেশের আপামর ধর্মপ্রাণ মানুষের কোন সম্পৃক্ততা থাকবে না। জাতির জনকের ভাস্কর্যের ভাঙচুরের সাথে জড়িতদের প্রতিহত করতে চবি শিক্ষক সমিতি বদ্ধপরিকর।