বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

ছাত্রদল নেতার মৃত্যু: এসপিসহ ১৮ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন

প্রকাশিতঃ ২৩ নভেম্বর ২০২২ | ১২:৫৮ অপরাহ্ন


ব্রাহ্মণবাড়িয়া : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরে ছাত্রদল নেতা নয়ন মিয়া নিহতের ঘটনায় পুলিশ সুপার আনিসুর রহমানসহ ১৮ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে আদালতে মামলার আবেদন করা হয়েছে। আবেদনে আটজনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। অজ্ঞাতনামা অন্য ১০ জনও পুলিশের সদস্য।

বুধবার (২৩ নভেম্বর) নয়নের বাবা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলার আবেদন করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া কোর্ট পরিদর্শক দিদারুল আলম। আদালত বাদীর বক্তব্য রেকর্ড করলেও পরে আদেশ দেবেন বলে জানা গেছে।

গত শনিবার বিকেলে কুমিল্লায় দলের বিভাগীয় গণসমাবেশের লিফলেট বিতরণকালে বাঞ্ছারামপুর উপজেলার সোনারামপুর ইউনিয়ন ছাত্রদলের সহ-সভাপতি নয়ন মিয়া পুলিশের গুলিতে নিহত হয় বলে অভিযোগ করেন তার স্বজনরা। এর প্রতিবাদে কর্মসূচিও পালন করেছে বিএনপি।

জানা গেছে, ওইদিন বাঞ্ছারামপুর উপজেলা সদরের মোল্লাবাড়ি এলাকায় বিএনপির মিছিলে বাধা দেয় পুলিশ। এ নিয়ে বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি ও অঙ্গসহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে গুলি চালায় পুলিশ। এতে গুলিবিদ্ধ হন বাঞ্ছারামপুর উপজেলার সোনারামপুর ইউনিয়ন ছাত্রদলের সহ-সভাপতি নয়ন মিয়া। পরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর রাত সাড়ে ৭টায় তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় আহত হন আরও অন্তত ১০ জন। পরবর্তীতে ওই ঘটনায় পুলিশ বিএনপি নেতাকর্মীদের আসামি করে মামলা করলেও বিএনপি ও নিহত নয়নের স্বজনদের অভিযোগ থানায় মামলা করতে গেলেও পুলিশ নেয়নি। যে কারণে আদালতে মামলা করার আবেদন করেছেন।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ছাত্রদল নেতা নয়নের বাবা রহমত উল্লাহ বাদী হয়ে মামলায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্কেল) মোজাম্মেল হোসেন রেজা, বাঞ্ছারামপুর থানার ওসি নুরে আলম, এসআই তরুণ কান্তি দে, আফজাল হোসেন ও যার গুলিতে নিহত হওয়ার দাবি করা হয়েছে সেই পুলিশ সদস্য বিশ্বজিতসহ ৮ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। আর পুলিশের ১০জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে।