সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ২ পৌষ ১৪২৬

হিংসা, নিন্দা ও অহংকার মানুষের ঘোর শত্রু: সুফি মিজানুর রহমান

প্রকাশিতঃ রবিবার, মার্চ ২৪, ২০১৯, ২:১৭ অপরাহ্ণ


চবি প্রতিনিধি : হিংসা, নিন্দা ও অহংকার মানুষের ঘোর শত্রু বলে মন্তব্য করেছেন পিএইচপি ফ্যামেলির চেয়ারম্যান সুফি মিজানুর রহমান।

রোববার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদ মিলনায়তনে যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ২০তম ব্যাচের বিদায়ী সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

সুফি মিজানুর রহমান বলেন, মানুষের জীবনে সাফল্য পেতে হলে হিংসা, নিন্দা ও অহংকার থেকে দূরে থাকতে হবে। একটি নাপাক বস্তু থেকে সৃষ্ট মানুষের কোন অহংকার থাকতে পারে না। হিংসা ও অহংকার মানুষকে ধ্বংস করে দেয়।

এ সময় সুফি মিজানুর রহমান তাঁর সংগ্রামী জীবনের চিত্র তুলে ধরে বলেন, আমি এক’শ টাকার চাকুরী থেকে জীবন শুরু করেছি। অনেক চড়াই উতরাই পেরিয়ে অনেক কষ্ট সহ্য করে আজকে আমি পিএইচপি ফ্যামেলির চেয়ারম্যান।

এ সময় তিনি সকলের উদ্দেশ্যে বলেন, সফলতার মূলমন্ত্র স্রষ্টার সৃষ্টিকে সাহায্য করা। যে যত বেশি অপরের সাহায্য করবে সে তত বেশী জীবনে সফলতা পাবে।

সুফি মিজানুর রহমান বলেন, মানুষকে বিনয়ী হতে হবে। মানুষের মনকে আরও কোমল করতে হবে। তাহলে সকল দাঙ্গা, হাঙ্গামা কমে যাবে। কঠোর পাহাড়ে কখনও ফুল ফোটে না। বরং কোমল মৃত্তিকায় ফুল ফোটে। মানুষের হৃদয়ও তেমন। অনমনীয় কঠোর হৃদয়ে কখনও ফুল ফোটেনা। ফুল ফোটাতে হলে, সাফল্য পেতে হলে, মানুষকে কোমল ও নমনীয় হতে হবে।

দিকনির্দেশনা মূলক বক্তব্যে তিনি আরও বলেন, আমরা অন্যের দোষ-ত্রুটি খুঁজে বেড়াই। যা মোটেও কাম্য নয়। জীবনে সফলতা পেতে হলে আমাদেরকে সর্বপ্রথম নিজের দোষ-ত্রুটি খুঁজে বের করতে হবে। নিজের দোষ-ত্রুটি খুঁজে বের করলেই জীবনে সফলতা পাওয়া সম্ভব।

তিনি আরও বলেন, জীবনকে সুন্দর করতে হলে, সাফল্য পেতে হলে, প্রত্যেককে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। প্রত্যেককে প্রয়োজনের উর্ধ্বে কাজ করতে হবে।

তিনি বলেন, সকলকে সত্যের চর্চা করতে হবে। সত্যই তোমাদের পথ দেখাবে। সত্যের সন্ধান বদলে দেবে জীবনের চাকা।

তিনি বলেন, আমরা কাজ করি কিন্তু আন্তরিকতার সাথে করি না। আন্তরিকতার সাথে কাজ করলে জীবনে সাফল্য আসবেই। ঝাঁড়ু দেওয়া, চা বিক্রি কিংবা মুচির কাজ কোনটি ছোট নয়। প্রত্যেকেই ছোট থেকে বড় হয়। তাই প্রত্যেককে আন্তরিকতার সাথে নিজ নিজ কাজ করতে হবে।সময়ের সঠিক ব্যবহার করতে হবে তবেই জীবনে সফলতা আসবে।

চবির যোগাযোগ ও সায়বাদিকতা বিভাগের সভাপতি আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চবি উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দীন চৌধুরী।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার। সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. ফরিদ উদ্দীন, বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রক্টর আলী আজগর চৌধুরী।

মহান বিজয় দিবস ২০১৯ উপলক্ষে একুশে পত্রিকা কর্তৃক একটি বিশেষ সংখ্যা প্রকাশের উদ্যেগকে স্বাগত জানাই। বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের পক্ষ হতে উক্ত প্রকাশনার সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে জানাই-

বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা

একটি সুখী, সমৃদ্ধ, ক্ষুধা ও দারিদ্র স্বপ্নীল ও ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকার এবং সন্ত্রাসমুক্ত পরিবেশ প্রতিষ্টার প্রত্যয় নিয়ে বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ নিজস্ব উন্নয়ন কর্মসূচি এবং ২৮ টি ন্যস্ত বিভাগের বিভাগীয় কার্যক্রমের সমন্বয় সাধনসহ নিম্নবর্ণিত কার্যদি গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করছেঃ

১) শিক্ষা
২) স্বাস্থ্য সেবা
৩) কৃষি
৪) মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ
৫) ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প
৬) যোগাযোগ
৭) পানীয় জল ও স্যানিটেশন
৮) সমবায় ও সমাজ সেবা কার্যক্রম
৯) ক্রীড়া ও সংস্কৃতি কর্মকান্ড
১০) স্থানীয় পর্যটন
১১) আইসিটি সেক্টর উন্নয়ন এবং
১২) মানব সম্পদ উন্নয়ন ইত্যাদি।

একটি উন্নত, সমৃদ্ধ, আধুনিক ও সম্প্রীতিত মডেল জেলা হিসেবে বান্দরবানকে গড়ে তোলাই হলো আমাদের দৃঢ় অঙ্গীকার-

ক্য শৈ হ্লা
চেয়ারম্যান
বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ
বান্দরবানান