শুক্রবার, ১০ জুলাই ২০২০, ২৬ আষাঢ় ১৪২৭

চট্টগ্রামে ১০২২ জিপিএ-৫ বেড়েছে মেয়েদের অভাবনীয় সাফল্যে

প্রকাশিতঃ রবিবার, মে ৩১, ২০২০, ৪:০০ অপরাহ্ণ


চট্টগ্রাম : চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডে এবার এসএসসিতে জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়েছে। এবার জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৯ হাজার ৮ জন; গত বছরের তুলনায় এবার জিপিএ-৫ বেশি পেয়েছেন ১ হাজার ২২ জন।

এসএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশের পর চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক নারায়ণ চন্দ্র নাথ বলেন, জিপিএ-৫ বৃদ্ধির ক্ষেত্রে বেশিরভাগ অবদান রেখেছে ছাত্রীরা। তাদের জিপিএ-৫ বৃদ্ধি পেয়েছে গত বছরের চেয়ে ১ হাজার ২২টি। যাকে মেয়ে শিক্ষার অগ্রগতির ক্ষেত্রে অভাবনীয় সাফল্য বলা যেতে পারে।

তিনি বলেন, এ বছর চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডে এসএসসি পরীক্ষায় শিক্ষার্থীরা বিগত বছরের তুলনায় অভাবনীয় সাফল্য দেখিয়েছে। ফলাফল ভালো হওয়ার পিছনে দু’টি বিষয় ভালোভাবে কাজ করছে। এর প্রথমটি হলো সরকারের গৃহীত শিক্ষামুখী বিভিন্ন পদক্ষেপ। বিশেষ করে নারী শিক্ষা এবং স্বল্পোন্নত এলাকায় শিক্ষা বিস্তারের জন্য বর্তমান সরকারের নানমুখী পদক্ষেপের কারণে শিক্ষার্থীরা স্কুলমুখী হয়েছে। যার ফলাফল আসতে শুরু করেছে।

চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডে এবার পাসের হার ৮৪.৭৫ শতাংশ। তারমধ্যে ছাত্র ৪ হাজার ২৪৫ জন এবং ছাত্রী ৪ হাজার ৭৬৩ জন। এবার জিপিএ-৫ এর ভিত্তিতে সেরা ২৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তালিকা প্রকাশ করেছে চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ড।

রোববার চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক নারায়ন চন্দ্র নাথ একুশে পত্রিকাকে জানান, জিপিএ-৫ এর ভিত্তিতে প্রথম হয়েছে চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল। প্রতিষ্ঠানটির ৪৭০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৪৬৯ পাস করেছে; এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪৩৮ জন।

দ্বিতীয় হয়েছে সরকারি মুসলিম হাই স্কুল। প্রতিষ্ঠানটির ৪৪২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে সবাই পাস করেছে; এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩৫৪ জন।

তৃতীয় হয়েছে নাসিরাবাদ সরকারি হাই স্কুল। প্রতিষ্ঠানটির ৪৬৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে সবাই পাস করেছে; এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩০৩ জন।

চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে খাস্তগীর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। প্রতিষ্ঠানটির ৩৪০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে সবাই পাস করেছে; এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৮৫ জন।

বাংলাদেশ মহিলা সমিতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ রয়েছে পঞ্চম স্থানে। প্রতিষ্ঠানটির ৪৬২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে সবাই; এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৮৪ জন।

৬ষ্ঠ স্থানে থাকা নৌ-বাহিনী উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের ৫১৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৫১৭ পাস করেছে; এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৫২ জন।

জিপিএ-৫ এর দিক থেকে চট্টগ্রাম সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় আছে ৭ম স্থানে। প্রতিষ্ঠানটির ২৮৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২৮৪ পাস করেছে; এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২০৪ জন।

চট্টগ্রাম সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ৩৫৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৩৩৯ পাস করেছে; এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৭৩ জন। জিপিএ-৫ এ সেরাদের তালিকায় প্রতিষ্ঠানটি আছে ৮ম স্থানে।

৯ম স্থানে আছে বাকলিয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়। প্রতিষ্ঠানটির ৩৮২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৩৮০ পাস করেছে; এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৬৬ জন।

১০ম স্থানে রয়েছে ক্যান্টনমেন্ট ইংলিশ স্কুল অ্যান্ড কলেজ। তাদের ১৮৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে সবাই পাস করেছে; এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৫৬ জন।

বাকি ১৫ স্কুলের মধ্যে আছে যথাক্রমে চট্টগ্রাম ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ, কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, সিলভার বেলস বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, হালিশহর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল, কক্সবাজার সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়, অপর্না চরণ সিটি করপোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠ, সিটি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ডবলমুরিং চট্টগ্রাম, সেন্ট প্লাসিড উচ্চ বিদ্যালয়, ইস্পাহানি পাবলিক স্কুল ও কলেজ, জোরারগঞ্জ বৌদ্ধ উচ্চ বিদ্যালয়, অংকুর সোসাইটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, কাপাসগোলা সিটি করপোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, আবদুর রহমান সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পটিয়া ও চট্টগ্রাম ইঞ্জিনিয়ারিং ইউনিভার্সিটি স্কুল অ্যান্ড কলেজ।