বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ২৯ কার্তিক ১৪২৬

ছবিতে অভিযানের শুরু থেকে সমাপ্তি

প্রকাশিতঃ সোমবার, ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০১৯, ১২:৪৯ পূর্বাহ্ণ

ছবি প্রতিবেদকঃ ঢাকা থেকে দুবাই যাওয়ার পথে চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমানবন্দরে বিমানের যে ফ্লাইটটি ছিনতাইয়ের চেষ্টা হয়েছে, সেটাতে সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে কমাণ্ডো অভিযানে সন্দেহভাজন অস্ত্রধারী যুবক মাহদী (২৬) গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছেন।

রোববার বিকালে এটি শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে রওনা হয়ে বিকেল ৫টা ৪১ মিনিটে চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমানবন্দরে নামার পর জিম্মিদশায় পড়ে। বিকালে আকস্মিকভাবে শাহ আমানতে নিরাপত্তাকর্মীরা বিজি-১৪৭ ফ্লাইটটি ঘিরে ফেললে এবং বিমানবন্দরের স্বাভাবিক কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়। পরে সেনাবাহিনীর বিশেষ কমান্ডো টিম দ্রুততম সময়ে উপস্থিত হন। পরে সবার সমন্বয়ে অভিযান চালানো হয়।

এরপর রাত পৌনে ৯টার দিকে বিমানবন্দরে প্রেস ব্রিফিংয়ে সেনাবাহিনীর ২৪ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি মেজর জেনারেল এস এম মতিউর রহমান জানান, গুলিবিদ্ধ অবস্থায় সন্দেহভাজন অস্ত্রধারীকে আটক করা হয়। পরে সে মারা গেছে। তার হাতে পিস্তল ছিল। তার দাবি ছিল, সে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও তার পরিবারের সাথে কথা বলতে চায়। দ্রুত মারা যাওয়ায় আনুমানিক ২৫-২৬ বছরের ওই যুবকের কাছ থেকে আমরা বিস্তারিত তথ্য পাইনি।

তিনি বলেন, মাত্র ৮ মিনিটের মধ্যে আমরা অভিযান শেষ করেছি। হলি আটিজানে সেনাবাহিনীর কমাণ্ডো দলের নেতৃত্ব দেয়া লে. কর্নেল এম এম ইমরুল হাসানকে আমরা সৌভাগ্যক্রমে এই অভিযানে পেয়েছি। তারা অন্য একটি কাজে চট্টগ্রামের ঈসা খাঁ ঘাটিতে ছিল।

তিনি আরো বলেন, ওই উড়োজাহাজে ১৩৪ জন যাত্রী ও ১৪ জন ক্রু ছিলেন। তাদের সবাই অক্ষত অবস্থায় নেমে এসেছেন। কেবিন ক্রুদের জিম্মি করা হয়েছিল। তবে ছিনতাইকারী কোনো যাত্রীর কোনো ক্ষতি করেনি। প্রথমে ধারণা করা হয়েছিল, ওই যুবক বিদেশি। কিন্তু পরে দেখা গেলে, সে বাংলাদেশি।ছবি গুলো বিমানবন্দর থেকে তুলেছেন একুশে পত্রিকার ফটোসাংবাদিক আকমাল হোসেন