সোমবার, ২৫ মে ২০২০, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

চবিতে অনলাইনে ক্লাসের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে সমাবেশের ডাক!

প্রকাশিতঃ রবিবার, মে ৩, ২০২০, ১১:২৩ অপরাহ্ণ


চবি প্রতিনিধি : করোনাভাইরাসের কারণে গত ১৮ মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি)। এমন পরিস্থিতিতে অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে সভার আয়োজন করছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

গত ২ মে ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার কে এম নুর আহমদ স্বাক্ষরিত এই সংক্রান্ত একটি আদেশ জারি করা হয়। এতে বলা হয়, আগামী ৪ মে বেলা ১১টায় উপাচার্যের সম্মেলন কক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হবে। এই প্রেক্ষিতে শহর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকদের নেয়ার জন্য ৪টি এসি বাস ও প্রয়োজনীয় মাইক্রোবাস বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, করোনাভাইরাসের কারণে দেশের সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এ সময় উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষা-কার্যক্রম সচল রাখতে অনলাইনের ক্লাস নেওয়ার তাগাদা দিয়েছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)।

ইউজিসির এ তাগাদা বাস্তবায়নের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে চবিতে ৯টি অনুষদের ডিন, ৫৪টি বিভাগ ও ইন্সটিটিউটের প্রধানদের নিয়ে উপাচার্য সভাকক্ষে সভা আহবান করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এতে সভাপতিত্ব করবেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার। এ সভায় ছাত্র উপদেষ্টা, প্রক্টর, আইসিটি সেলের পরিচালকসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদেরও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, অনলাইনে ক্লাস নেয়ার বিষয়ে বিভিন্ন অনুষদের ডিনদের সঙ্গে একই রকম সভা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান। গত ২০ এপ্রিল ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

এইদিকে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব কমাতে শুরু থেকে জনসমাগম এড়িয়ে চলার পরামর্শ দিয়েছে সংশ্লিষ্টরা। তাছাড়া সভা-সমাবেশ ও জনসমাগমের উপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে সরকারের।

তবে এতসব নির্দেশনার পরও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে জনসমাগম ঘটিয়ে সভার ডাক দেওয়ার বিষয়টির সমালোচনা করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষক।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা বলেছেন, অনলাইনে ক্লাসের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে জনসমাগম ঘটিয়ে অফলাইনে সভা ডাকার বিষয়টি কর্তৃপক্ষের সচেতনতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। উপাচার্যের সম্মেলন কক্ষ এত শিক্ষক নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে সভা করতে পারা সম্ভব নয়। সেক্ষেত্রে করোনা সংক্রমণের শঙ্কাও রয়েছে।

তাছাড়া অনলাইনে ক্লাসে নেওয়ার বিষয়টিকেও যৌক্তিক মনে করছেন না বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। তারা বলছেন, অনেকেই গ্রামে অবস্থান করছেন। সেখানে ইন্টারনেটের সংযোগেরও সমস্যা রয়েছে। এছাড়া আর্থিক সমস্যার বিষয়টিও তুলে ধরছেন তারা।

এ বিষয়ে চবি উপাচার্য ড. শিরীণ আখতার বলেন, ইউজিসির নির্দেশনা অনুযায়ী অনলাইনে ক্লাস নিতে শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন সমস্যা থাকায় অধিকাংশ শিক্ষক এর বিপক্ষে। তাই একটা সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য সোমবার মিটিং ডেকেছি। যারা সভায় আসতে পারবেন না তাদের সাথে হোয়াটসঅ্যাপে আমরা কথা বলবো।