বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৮ আশ্বিন ১৪২৭

করোনা-আতঙ্কে চিকিৎসকশূন্য শহরে ভরসা কেবল একজনই!

প্রকাশিতঃ মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২০, ১২:০৭ অপরাহ্ণ


আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ইয়েমেনের এডেন শহর। মাস খানেক আগে থেকে যুদ্ধবিধ্বস্ত শহরটিতে শোকের সাথে নতুন আতঙ্কের নাম করোনা ভাইরাস। প্রায় ১০ লাখ লোকের বসবাস হলেও শহরটি এখন চিকিৎসক শূন্য। বিবিসি জানিয়েছে, করোনার ভয় ও পিপিই’র অভাবে তারা হাসপাতালে আসছেন না বিগত কয়েক মাস।

চিকিৎসক সংকটে পুরো শহরে চালু আছে মোটে একটি হাসপাতাল। সেটিও বাইরে থেকে দেখতে পরিত্যক্ত। তবে এখানেই বর্তমানে চিকিৎসা নিতে আসছেন স্থানীয়রা। পুরো হাসপাতালটি যার কারণে চলছে তিনি হলেন ডা. জোহা। এই শোকের জায়গায় সবাই চলে গেলেও পালিয়ে যাননি এডেনের আল-আমল হাসপাতালের এই চিকিৎসক।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক দ্য টাইমসের প্রতিবেদনে সম্প্রতি উঠে এসেছে এই প্রকৃত মানবতাবাদী চিকিৎসকের কথা। সেখানে বলা হয়েছে, “করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিতে স্বেচ্ছায় ওই শহরে থেকে যাওয়া সেই একমাত্র চিকিৎসকের নাম ডা. জোহা। সেখানে পরিত্যক্ত ধরনের হাসপাতালের মূল ফটক পেরিয়ে ভেতরে একটা ফাঁকা বিছানায় নীল গাউন আর মাথার স্কার্ফ পরা এক তরুণীকে দেখা গেল। তিনি তখন দূরের কিছু দেখছিলেন। কাছে যেতে কুশল বিনিয়ম করতেই তিনি নিজেকে ডঃ জোহা আইদারুস হিসেবে পরিচয় দেন।

টাইমস প্রতিবেদককে জোহা বলেন, “জানুয়ারী মাসে প্রথম টিভিতে করোনার সংবাদ শুনে খুবই দুশ্চিন্তায় পড়েছিলাম আমি ও আমার মা। আমরা এই নতুন মারাত্মক ভাইরাসের কথা শুনছিলাম এবং সংবাদে বলা হচ্ছিল বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী দেশগুলো কিভাবে তা মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হচ্ছিল। সেই থেকে ধীরে ধীরে এখানকার চিকিৎসা ব্যবস্থা আরো করুণ হতে থাকে।”

তিনি জানান, প্রতিদিন হাসপাতালে আসা ৩০ থেকে ৪০ জন শ্বাসকষ্টী রোগীর জন্য সাতটি কৃত্রিম ভেন্টিলেটর বরাদ্দ করা হয়েছ অনেক চেষ্টার পর। কখনও কখনও সংখ্যা বেশি হয়। এখানে যদি কোন রোগীর মৃত্যু ছাড়া ১২ ঘণ্টার শিফট চলে যায়, তাহলে এটি একটি ভালো দিন হিসেবে গণ্য হয়।
এখন পর্যন্ত মোট ৫৮৩ জন করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে দেশটিতে। সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত এই এডেন সমুদ্রবন্দর এলাকাতেই।

মিডল ইস্ট আইয়ের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে জোহাকে এখানকার রোগীদের সেবা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। কাজটি যদিও খুব চাপের এবং গভীরভাবে হতাশাজনক তবুও জোহাকে সীমিত সম্পদ দিয়ে অনেকটা অলৌকিক ভাবে কাজ করতে হচ্ছে। একদিকে বছরের পর বছরের যুদ্ধের কারণে ইয়েমেনের স্বাস্থ্যসেবা অবকাঠামো ধ্বংস হয়ে গেছে অন্যদিকে করোনা আতঙ্কে চিকিৎসক শূন্য পুরো নগরী।

বিবিসি জানিয়েছে, কোভিড-১৯ এর ভয়ে এবং কোন কোন পিপিই না পাওয়ায় এডেন এখন পুরো চিকিৎসক শূন্য। সেখানে এখন কেবল ডা. জোহাকেই পাশে পাচ্ছেন শহরের অধিবাসীরা। এখন পর্যন্ত মাত্র দুই হাজার ১১ জন করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছে এক হাজার ২১২ জন। বর্তমানে আক্রান্ত অবস্থায় আছে ২১৬ জন।