শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

পাকিস্তানকে সুপার ওভারে হারালো জিম্বাবুয়ে

প্রকাশিতঃ বুধবার, নভেম্বর ৪, ২০২০, ৩:২৫ অপরাহ্ণ


রাওয়ালপিন্ডি : গতরাতে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে স্বাগতিক পাকিস্তানকে সুপার ওভারে হারিয়েছে সফরকারী জিম্বাবুয়ে।

প্রথমে ব্যাট করে সিন উইলিয়ামসের সেঞ্চুরিতে ৫০ ওভারে ৬ উইকেটে ২৭৮ রান করে জিম্বাবুয়ে। জবাবে অধিনায়ক বাবর আজমের সেঞ্চুরিতে ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ২৭৮ রান করে ম্যাচ টাই করে পাকিস্তান। ফলে ম্যাচটি সুপার ওভারে গড়ায়। সেখানে পাকিস্তানকে হারিয়ে দেয় জিম্বাবুয়ে। তারপরও তিন ম্যাচের সিরিজ ২-১ ব্যবধানে জিতে নিয়েছে পাকিস্তান। প্রথম দুই ম্যাচ যথাক্রমে ২৬ রানে ও ৬ উইকেটে জিতেছিলো পাকিস্তান।

রাওয়ালপিন্ডিতে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করে নামে জিম্বাবুয়ে। ২২ রানে প্রথম ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে তারা। চতুর্থ উইকেটে ৮৪ রানের জুটি গড়ে প্রাথমিক ধাক্কা সামাল দেন ব্রেন্ডন টেইলর ও উইলিয়ামস।

প্রথম ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান টেইলর ৫৬ রান করে ফিরলেও, এক প্রান্ত ধরে রেখেছিলেন উইলিয়ামস। ইনিংসের শেষ ওভার পর্যন্ত খেলে ওয়ানডে ক্যারিয়ারের চতুর্থ সেঞ্চুরির স্বাদ নেন তিনি। ১৩টি চার ও ১টি ছক্কায় ১৩৫ বলে অপরাজিত ১১৮ রান করেন বাঁ-হাতি উইলিয়ামস।

উইলিয়ামসের সেঞ্চুরির পাশাপাশি শেষদিকে, উইসলি মাদভেরে ৩১ বলে ৩৩ ও সিকান্দার রাজা ৩৬ বলে ৪৫ রান করেন। ফলে ৬ উইকেটে ২৭৮ রানের বড় সংগ্রহই পায় জিম্বাবুয়ে। পাকিস্তানের পেসার মোহাম্মদ হাসনাইন ১০ ওভারে ২৬ রানে ৫ উইকেট নেন।

জবাবে ৮৮ রান তুলতেই ৫ ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে মহাবিপদে পড়ে পাকিস্তানও। তবে ষষ্ঠ উইকেটে খুশদিল শাহকে নিয়ে ৬৩ ও সপ্তম উইকেটে ওয়াহাব রিয়াজকে নিয়ে ১শ রানের জুটি গড়ে পাকিস্তানের জয়ে আশা বাঁচিয়ে রাখেন অধিনায়ক বাবর। খুশদিল ৩৩ ও রিয়াজ ৫২ রান করে ফিরেন। তবে ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ১২তম সেঞ্চুরি তুলে ৪৯তম ওভারে নবম ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হন বাবর। ১৩টি চার ও ১টি ছক্কায় ১২৫ বলে ১২৫ রান করেন বাবর।

বাবরের আউটের পর জয়ের জন্য শেষ ওভারে ১ উইকেট হাতে নিয়ে ১৩ রানের প্রয়োজন পড়ে পাকিস্তানের। উইকেটে ছিলেন পাকিস্তানের শেষ দুই ব্যাটসম্যান মুহাম্মদ মুসা ও হাসনাইন। বোলার ছিলেন বাঁ-হাতি পেসার রিচার্ড গারাভা। প্রথম বলে চার মারেন মুসা। পরের চার বলে ৪ রান নিতে পারেন মুসা ও হাসনাইন। ফলে ম্যাচ জিততে শেষ বলে ৫ রান দরকার পড়ে। কিন্তু শেষ বলে বাউন্ডারি মেরে ম্যাচ টাই করেন মুসা।
ফলে ম্যাচটি সুপার ওভারে গড়ায়। সেখানে প্রথমে ব্যাট করে ৪ বলে ২ উইকেট মাত্র ২ রান তুলতে পারে পাকিস্তান। ২টি উইকেটই নেন ব্লেসিং মুজারাবানি। ৩ রানের টার্গেট ৩ বলেই স্পর্শ করে জয় তুলে নেয় জিম্বাবুয়ে।

এই সিরিজটি বিশ্বকাপ সুপার লিগের অংশ । সুপার লিগে প্রথম সিরিজ ছিলো পাকিস্তান ও জিম্বাবুয়ের। ৩ ম্যাচে ২ জয়ে ২০ পয়েন্ট পেল পাকিস্তান। আর ১ জয়ে ১০ পয়েন্ট পেল জিম্বাবুয়ে। তিন ম্যাচের ২টি সিরিজ খেলে ৩ জয়ে ৩০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে ইংল্যান্ড।
ওয়ানডে সিরিজ শেষে আগামী ৭ নভেম্বর থেকে তিন ম্যাচের টি-টুয়েন্টি সিরিজ খেলবে পাকিস্তান ও জিম্বাাবুয়ে।