সোমবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২১, ১২ মাঘ ১৪২৭

গার্মেন্টসকর্মীর এ কান্না বঞ্চনার নয়, ভালোবাসার!

প্রকাশিতঃ বুধবার, জানুয়ারি ১৩, ২০২১, ১:৩৬ অপরাহ্ণ


হোসাইন সাজ্জাদ : একজন গার্মেন্টসকর্মী কাঁদছেন অঝোরে, কখনোবা হাউমাউ করে। গার্মেন্টস-মালিককেও জড়িয়ে ধরে কেঁদেছেন দীর্ঘক্ষণ। দেশের গার্মেন্টস সেক্টরে কর্মরত শ্রমিকদের প্রায়ই গল্প যখন বঞ্চনার কিংবা তিক্ত অভিজ্ঞতার, সেখানে এই কান্নার দৃশ্য নিরেট ভালোবাসার, পরম মমতার। দীর্ঘদিনের প্রাণের কর্মস্থল ছেড়ে বিদেশ বিভুঁইয়ে পাড়ি জমাতে হচ্ছে বলেই অশ্রুজলের এই মাতম!

আর এমন ব্যতিক্রমী দৃশ্যের অবতারণা হয় সোমবার (১১ জানুয়ারি) নগরের নাসিরাবাদ শিল্প এলাকায় অবস্থিত ইন্ডিপেন্ডেন্ট এপারেলসে।

জানা যায়, রুবেল নামের এক গার্মেন্টসকর্মী আজ থেকে ২০ বছর আগে যোগ দেন বিজিএমইএ’র প্রাক্তন প্রথম সহ সভাপতি ও চট্টগ্রাম ক্লাবের প্রাক্তন সভাপতি এসএম আবু তৈয়বের মালিকানাধীন ইন্ডিপেন্ডেন্ট এপারেলসে। ক্রমান্বয়ে পদোন্নতি হয়ে তিনি সুপারভাইজার হন। ভাল বেতন। বছরে দুটি পূর্ণ বোনাস, ইন্স্যুরেন্স সুবিধা, ছুটির বেনিফিট, বাৎসরিক ইনক্রিমেণ্টসহ নানা সুবিধা ভোগ করতেন অন্যান্য স্টাফদের মত।

এছাড়া বার্ষিক পিকনিক, ফল-উৎসব, মেজবান আর নারী গার্মেন্টসকর্মীদের কর্মস্থলেই বিয়ের আয়োজন-উৎসব, মালিকপক্ষের বন্ধুবৎসল, মানবিক আচরণ ও নানা শ্রমিকবান্ধব প্রণোদনার মায়াজালে আটকে গিয়েছিলেন রুবেল।

স্বজন-শুভার্থীদের আরও বড় নামক ‘অনিশ্চিত স্বপ্নের’ হাতছানির ফাঁদে পা দিয়ে মঙ্গলবার (১২ জানুয়ারি) আরব আমিরাতের দুবাইয়ে রুবেল পাড়ি জনান দীর্ঘদিনের কর্মস্থলের সমস্ত মায়াজাল ছিন্ন করে।

এই যাত্রাকালে রুবেল নিজে কেঁদেছেন, সহকর্মীদের কাঁদিয়েছেন। কেঁদেছেন ইন্ডিপেন্ডেন্ট এপারেলসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এসএম আবু তৈয়বও।


এজন্যই নিজের ফেসবুকে আবু তৈয়ব লিখেন, রুবেলের কান্নায় আজ মনটা ভারি হয়ে গেলো। প্রায় বিশ বছরের চাকরি করে অনেকটা হঠাৎ করেই দুবাই চলে গেল সে। কেন জানি বাচ্চাদের মতো করেই কাঁদছিল রুবেল। বারবার বলছিল স্যার আপনাকে অনেক মিস করব।

তিনি লিখেন, রুবেল সুপারভাইজার পদে চাকরি করত। ভাল বেতনও পেত। বছরে দুটি পূর্ণ বোনাস, ইন্স্যুরেন্স, ছুটির বেনিফিট, বাৎসরিক ইনক্রিমেন্টসহ অন্যান্য সুবিধা ছেড়ে অনিশ্চিত স্বপ্ন নিয়ে মধ্যপ্রাচ্য যাত্রা কতটুকু যুক্তিযুক্ত সেটা তার সাথে কথা বলে ঠিক নিশ্চিত হতে পারলাম না।

ইদানীং মধ্যপ্রাচে চাকরিতে খুব কম বেতন আর আকামা নবায়নসহ নানা নিপীড়ন প্রায়শ সংবাদ হচ্ছে। তাই রুবেলের মত টেকনিশিয়ানদের এভাবে দেশছাড়া আমার কাছে সঠিক সিদ্ধান্ত বলে মনে হয়নি। তারপরও রুবেলের জন্য অনেক দোয়া রইল। মহান আল্লাহ যেন তার মনের আশা পূর্ণ করেন।-যোগ করেন আবু তৈয়ব।