রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১১ ফাল্গুন ১৪২৬

চট্টগ্রামের রাস্তায় রাইড শেয়ারিংয়ের মোটরবাইকে নারীরা

প্রকাশিতঃ বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ২৩, ২০২০, ৪:১৭ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম : বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) দুপুর আড়াইটায় জেইন নামে এক নারীর কল পান সৌখিন রাইড শেয়ারকারী আলমগীর। প্যারেড কর্নার থেকে নতুন রেল স্টেশন যাবেন তিনি। চকবাজার অলিখাঁ মসজিদের পাশ থেকে প্যারেড কর্নারে এসে অপেক্ষমাণ ওই নারীযাত্রীকে দ্রুততম সময়ে নিরাপদে গন্তব্যে পৌঁছে দেন আলমগীর। অপরপক্ষে ৭৩ টাকা ভাড়া মিটিয়ে ধন্যবাদ জানিয়ে বিদায় নেন জেইন।

এছাড়াও দুদিন আগে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ এলাকা থেকে আগ্রাবাদ শিশু হাসপাতালে এবং চকবাজার থেকে জিইসি মোড়ের ব্রিটিশ কাউন্সিলের কাছে একইভাবে দুই নারী যাত্রীকে পৌঁছে দেন আলমগীর। গত একসপ্তাহে সাধারণ যাত্রীর বাইরে কেবল আলমগীরই গন্তব্যে পৌঁছে দিয়েছেন তিনজন নারীযাত্রীকে।

জানা যায়, রাইড শেয়ারিংয়ের মোটরবাইক চালক আলমগীরই শুধু নন, চট্টগ্রামের রাস্তায় প্রতিদিন নারী যাত্রীদের গন্তব্যে পৌঁছে দিচ্ছেন অন্যান্য রাইড শেয়ারকারীরা।

এ প্রসঙ্গে রাইড শেয়ারকারী আলমগীর একুশে পত্রিকাকে বলেন, রাইড শেয়ারিংয়ের কারে চড়া নারীযাত্রীদের নিরাপত্তা নিয়ে যেখানে প্রশ্ন উঠছিল সেখানে নারীরা চট্টগ্রামে মোটরবাইকে চড়ছেন এটা অনেক আশার কথা। আমাদের উচিত হবে পুরুষ-যাত্রীদের পাশাপাশি নারী যাত্রীকে স্বাগত জানানো, তাদেরকে নিরাপদ গন্তব্যে পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্বটি নিখুঁতভাবে পালন করা।

আলমগীর বলেন, আমি মনে করি নিশ্চিন্তে, অনায়াসে নারীরা শেয়ারিংয়ের মোটরবাইকে চড়তে পারেন। কারণ, এখানে রাইড শেয়ারকারীর মোবাইল ফোন নাম্বার, কোড নাম্বার, ইমেইল আইডি, ছবি সবকিছু সংরক্ষিত থাকছে। কাজে কোনো অঘটন ঘটার সুযোগ নেই। কেউ নেগেটিভ কিছু করতে চাইলে তার পার পাবার কোনো সুযোগ নেই।

পরপর তিনজন নারীযাত্রীকে মোটরবাইকে লিফট দেয়ার অভিজ্ঞতা শেয়ার করে আলমগীর বলেন, অপরিচিত একজন নারী যখন বাইকে বসেন তখন স্বাভাবিকভাবেই একটু আড়ষ্টতা, সংবেদনশীলতা, সম্মানবোধ কাজ করে। সেটি মাথায় রেখেই আমি বাইক চালাই। বসতে জানলে চালক-যাত্রীর মাঝখানে গ্যাপ রেখেও বসা যায়। তাছাড়া হাতে ব্যাগ বা বহনযোগ্য কিছু থাকলে সেই বস্তুটিও দুইজনের বসার মাঝখানে রাখা যায়। সবচেয়ে বড় কথা-ব্যস্ত, যান্ত্রিক, দৌড়ঝাঁপের যাপিত জীবনে কার সাথে কার শরীর লাগলো সে বিষয়টিও অনেক সময় মাথায় থাকে না। যোগ করেন মোটরবাইক চালক আলমগীর।

আলমগীরের রাইড শেয়ারিংয়ে বাইক-আরোহী জেইন এ প্রসঙ্গে একুশে পত্রিকাকে বলেন, আমি একটি ইন্টারন্যাশনাল প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী। ঢাকা যাওয়ার জন্য আমাকে তিনটার ট্রেন ধরতে হবে। আমার হাতে সময় ছিল খুব কম। তাই উবারের রাইট শেয়ারিংয়ের মোটরবাইক অপশনে ক্লিক করলাম। এরপর চকবাজার থেকে ১৫-২০ মিনিটের মধ্যে আমি স্টেশনে পৌঁছে যাই।

সময় ও প্রয়োজনে মেটাতে এটি একটি চমৎকার পরিষেবা উল্লেখ করে জেইন বলেন, জরুরি ইস্যুতে আমি প্রায়ই মোটরবাইকের দ্বারস্থ হই। এতে কখনো অসুবিধা অনুভব করিনি। বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে দেশ এগিয়েছে, এগিয়ে যাচ্ছে মানুষের চিন্তা, রুচিবোধ। পরিচিত পুরুষের বাইকে চড়লাম নাকি অপরিচিতের বাইকে চড়লাম, একইভাবে গায়ের সাথে গা লাগলো কিনা সেসব ভাবার সময় কি এখন আছে? সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে চলতে হলে এসব পশ্চাৎপদ চিন্তা ঝেড়ে ফেলতে হবে। তাছাড়া সম্মান, ব্যক্তিত্ব, ইজ্জত-আব্রু- এগুলো থাকে অন্তরে, রুচিতে। চোখে দেখার কিংবা মুখে বলার বিষয় নয় এগুলো।- বলেন জেইন।

রাইডের মোটরবাইকে নারীযাত্রীদের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে জেইন বলেন, আমি অনিরাপত্তার কিছু দেখি না। কলিংয়ের পর যখন চালক-যাত্রী কানেকটেড হয় তখন উভয়ের তথ্য উভয়ের মোবাইল ফোনে চলে আসে। এরপরও কোনো চালক অপরাধ করে পার পাবার সুযোগ থাকার কথা নয়। তাছাড়া চালকের অন্যায়, অনৈতিক কিছু দেখলে আমি নিজেই তো যথেষ্ট, প্রতিবাদ করা এবং রুখে দিতে। প্রত্যেক নারীই একেকজন সাহসী। প্রয়োজন শুধু সেই সাহসে আগুন জ্বালানো। এরপরও নারীযাত্রীরে মোটরবাইকে আরোহনের আগে সংশ্লিষ্ট চালকের মোবাইল ফোন, গাড়ির নাম্বার পরিবারের ঘনিষ্ঠ কাউকে ইনফর্ম করে রাখা ভালো বলে মনে করেন জেইন, যা তিনি করেন।

প্রসঙ্গত, মুঠোফোনের অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিং, মানে পরিবহন পরিষেবা আজকাল বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। বাংলাদেশেও এর প্রসার বাড়ছে। যদিও ঢাকা ও চট্টগ্রামেই এখনো এর ব্যবহার বেশি, কিন্তু ধীরে ধীরে অন্যান্য জেলা শহরেও এই অ্যাপের মাধ্যমে গাড়ি বা মোটরবাইক ডাকার এই সেবা শুরু হচ্ছে। মুঠোফোনের ইশারায় উবার, পাঠাও, সহজ, ওভাই ইত্যাদি রাইড শেয়ারিং পরিষেবা দিনে চট্টগ্রামের রাস্তায় প্রায় ৫০ হাজার যাত্রী পরিবহন করছে বলে জানা গেছে।

শুধু তাই নয়, ঢাকার রাস্তায় রাইট শেয়ারিংও করছেন নারীরা। এমন এক নারী উবারচালক শাহনাজ আকতার, সম্প্রতি যিনি গণমাধ্যমে আত্মনির্ভরশীলতার কারণে শিরোনাম হয়েছেন।

একুশে/এটি

ছবিটি ফাইল থেকে নেয়া