শনিবার, ৮ আগস্ট ২০২০, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭

২৪ ঘন্টায় মারা গেছেন ৩০ জন, মোট সুস্থ ৮৮,০৩৪

প্রকাশিতঃ শনিবার, জুলাই ১১, ২০২০, ৩:০০ অপরাহ্ণ


ঢাকা : দেশে গত ২৪ ঘন্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৩০ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। এখন পর্যন্ত মৃত্যুবরণ করেছেন ২ হাজার ৩০৫ জন।

গতকালের চেয়ে আজ ৭ জন কম মৃত্যুবরণ করেছেন। গতকাল ৩৭ জন মৃত্যুবরণ করেছিলেন। করোনা শনাক্তের বিবেচনায় আজ মৃত্যুর হার ১ দশমিক ২৭ শতাংশ। আগের দিনও এই হার ছিল ১ দশমিক ২৭ শতাংশ।
আজ দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত অনলাইন হেলথ বুলেটিনে অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা এসব তথ্য জানান।

অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা জানান, করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে গত ২৪ ঘন্টায় হাসপাতাল এবং বাসায় মিলিয়ে সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৬২৮ জন। গতকালের চেয়ে আজ ২৩৪ জন কম সুস্থ হয়েছেন। গতকাল সুস্থ হয়েছিলেন ১ হাজার ৮৬২ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৮৮ হাজার ৩৪ জন।

তিনি জানান, আজ শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৪৮ দশমিক ৬০ শতাংশ। আগের দিন এই হার ছিল ৪৮ দশমিক ৪২ শতাংশ। আগের দিনের চেয়ে আজ সুস্থতার হার শূন্য দশমিক ১৮ শতাংশ বেশি।

অতিরিক্ত মহাপরিচালক জানান, গত ২৪ ঘন্টায় ১১ হাজার ১৯৩ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২ হাজার ৬৮৬ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। গতকালের চেয়ে আজ ২৬৩ জন কম শনাক্ত হয়েছেন। গতকাল ১৩ হাজার ৪৮৮ জনের নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত হয়েছিলেন ২ হাজার ৯৪৯ জন।
তিনি জানান, দেশে এ পর্যন্ত মোট ৯ লাখ ২৯ হাজার ৪৬৫ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১ লাখ ৮১ হাজার ১২৯ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। মোট পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৯ দশমিক ৪৯ শতাংশ। গত ২৪ ঘন্টায় নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার ২৪ শতাংশ। আগের দিন এ হার ছিল ২১ দশমিক ৮৬ শতাংশ। আগের দিনের চেয়ে আজ শনাক্তের হার ২ দশমিক ১৪ শতাংশ বেশি।
ডা. নাসিমা সুলতানা জানান, ‘করোনাভাইরাস শনাক্তে গত ২৪ ঘন্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১১ হাজার ৪৭৫ জনের। আগের দিন সংগ্রহ করা হয়েছিল ১৪ হাজার ৩৭৭ জনের। গতকালের চেয়ে আজ ২ হাজার ৯০২টি নমুনা কম সংগ্রহ করা হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় দেশের ৭৭টি পরীক্ষাগারে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১১ হাজার ১৯৩ জনের। আগের দিন নমুনা পরীক্ষা হয়েছিল ১৩ হাজার ৪৮৮ জনের। গত ২৪ ঘন্টায় আগের দিনের চেয়ে ২ হাজার ২৯৫টি কম নমুনা পরীক্ষা হয়েছে।
তিনি জানান, মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ২৫ জন পুরুষ এবং ৫ জন নারী। এখন পর্যন্ত মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে পুরুষ ১ হাজার ৮২৪ জন এবং নারী ৪৮১ জন। শনাক্ত বিবেচনায় ৭৯ দশমিক ১৩ শতাংশ পুরুষ ও ২০ দশমিক ৮৭ শতাংশ নারী। ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুবরণকারীদের বয়স বিশ্লেষণে দেখা যায়, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে ১ জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ৩ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ১২ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ৩ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৮ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ৩ জন রয়েছেন।
নাসিমা সুলতানা জানান, ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ১৩ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ১০ জন, রাজশাহী বিভাগে ৩ জন, খুলনা বিভাগে ৩ জন এবং বরিশাল বিভাগে ১ জন রয়েছেন। এদের মধ্যে হাসপাতালে মারা গেছেন ১৮ জন, বাসায় মৃত্যুবরণ করেছেন ১১ জন এবং মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয় ১ জনকে। এ পর্যন্ত যারা মৃত্যুবরণ করেছেন তাদের শতকরা হার, শূন্য থেকে ১০ বছরের মধ্যে দশমিক ৬১ শতাংশ, ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে ১ দশমিক ১৩ শতাংশ, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে ৩ দশমিক ২১ শতাংশ, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ৭ দশমিক শূন্য ৭ শতাংশ, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ১৪ দশমিক ৬২ শতাংশ, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ২৯ দশমিক ৭৬ শতাংশ এবং ৬০ বছরের বেশি বয়সীদের হার ৪৩ দশমিক ৬০ শতাংশ। এ পর্যন্ত মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে বিভাগওয়ারী ঢাকা বিভাগে ৫০ দশমিক শূন্য ২ শতাংশ, চট্টগ্রাম বিভাগে ২৬ দশমিক ৫৫ শতাংশ, রাজশাহী বিভাগে ৫ দশমিক শূন্য ৭ শতাংশ, খুলনা বিভাগে ৪ দশমিক শূন্য ৯৯ শতাংশ, বরিশাল বিভাগে ৩ দশমিক ৬০ শতাংশ, সিলেট বিভাগে ৪ দশমিক ৩০ শতাংশ, রংপুর বিভাগে ৩ দশমিক ০৮ শতাংশ এবং ময়মনসিংহ বিভাগে ২ দশমিক ৩৯ শতাংশ।