সোমবার, ৮ মার্চ ২০২১, ২৪ ফাল্গুন ১৪২৭

প্রেম নয়, তবুও প্রেমেরই মতন শুধু

প্রকাশিতঃ রবিবার, জানুয়ারি ৩, ২০২১, ৭:২৮ অপরাহ্ণ


শান্তনু চৌধুরী : প্রশ্ন : দু’দিন আগে আমার বান্ধবীর সঙ্গে অনিরাপদ সঙ্গম করি। গর্ভধারণ ঠেকাতে আমরা আই-পিল (জরুরি গর্ভ-নিরোধক বড়ি কিনে আনি কিন্তু উত্তেজনাবশত ওষুধটি তার পরিবর্তে আমি খেয়ে ফেলেছি। এর ফলে আমার কি কোনো সমস্যা হতে পারে?

উত্তর : পরের বেলায় অনুগ্রহ করে কনডম ব্যবহার করবেন এবং মনে রাখবেন সেটিও যেন গিলে না ফেলেন।

প্রশ্ন : আমি শুনেছি যে কোনও ধরনের অ্যাসিডিক জিনিস নাকি গর্ভধারণ ঠেকাতে পারে। সঙ্গম করার পর আমি কি আমার বান্ধবীর যোনিতে কয়েক ফোটা লেবু বা কমলালেবুর রস ফেলতে পারি? এজন্য কি তার ক্ষতি হবে?

উত্তর : আপনি কি ভেলপুরি বিক্রেতা? এই অদ্ভুত ধারণা আপনি কোথায় পেয়েছেন? জন্ম নিয়ন্ত্রণের জন্য আরো অনেক সহজ ও নিরাপদ উপায় আছে। আপনি কনডম ব্যবহারের কথা বিবেচনা করতে পারেন।

ভারতে একজন যৌন বিশেষজ্ঞ, যিনি পত্রিকায় যৌন সম্পর্কের ওপর কলাম লিখে ও পাঠকের এ সংক্রান্ত প্রশ্নের জবাব দিয়ে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন। তার নাম ড. মাহিন্দার ওয়াতসা। যিনি ছিলেন ধাত্রীবিদ্যা বিশারদ এবং স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ। ৯৬ বছর বয়সে তিনি মারা যান। ড. মাহিন্দার ওয়াতসা পত্রিকায় ১০ বছরেরও বেশি সময় ধরে ‘আস্ক দ্যা সেক্সপার্ট’ বা ‘যৌন বিশেষজ্ঞকে জিজ্ঞেস করুন’ এই শিরোনামে কলাম লিখেছেন।

এই কলামে তিনি মজা করে মানুষের যৌন সংক্রান্ত বিভিন্ন উদ্বেগ ও প্রশ্নের উত্তর দিতেন। এসব উত্তর ছিল সহজ ও পরিস্কার। সঙ্গে কৌতুক মেশানো। মৃত্যুর পর তার সন্তানদের পক্ষ থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘তিনি এক গৌরবান্বিত জীবন যাপন করেছেন’। ড. ওয়াতসা যৌন উপদেশমূলক এই কলাম লিখতে শুরু করেন ৮০ বছর বয়সে। মুম্বাই মিরর পত্রিকায় তার কলাম ছাপা হতো। কিন্তু এই কলাম লেখার জন্য তাকে কম ঝামেলা পোহাতে হয়নি। যেমনটা হয় আর কী!

সেক্স বিষয়ে কথা বললেই চোখ কপালে উঠে। কিন্তু সেটিতেই আবার আগ্রহ বেশি। যেমন দাম্পত্য জীবনে সুখ ফিরিয়ে আনতে স্বামীর কাছে ‘বিশেষ আবদার’ করেন স্ত্রী। এমন আবদারে সাড়া দেন স্বামীও। আর সেখানেই বাঁধে বিপত্তি। স্ত্রীর দেয়া ‘বিশেষ মলম’ ব্যবহারের আবেদনে সাড়া দিয়েই বড় ধরনের বিপদে পড়েন ওই স্বামী। যদিও শেষ পর্যন্ত বিপদের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছেন তিনি। ভারতের মহারাষ্ট্রে এই ঘটনাটি ঘটেছে।

ভারতীয় গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, সম্প্রতি ভারতের মুম্বাই মহারাষ্ট্রের এক যুবক তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে চাঞ্চল্যকর অভিযোগ এনেছেন। ওই যুবক ভারতীয় সেনাবাহিনীতে কাজ করেন। কিছুদিন আগে ছুটির সময়ে তিনি বাড়িতে আসেন। আর সেই সময়ে ঘটে এই বিপত্তি। ভুক্তভোগী ওই স্বামীর অভিযোগ, তার স্ত্রী বিশেষ একটি মলম দেন তাকে। ওই মলমটি গোপনাঙ্গে দিলেই শারীরিক উত্তেজনা বেড়ে যায় বলে তাকে (স্বামীকে) জানায় স্ত্রী। ওই যুবক স্ত্রীর কথামতো মলমটি পুরুষাঙ্গে মেখে নেন। কিন্তু, এরপরই প্রচণ্ড ব্যথা শুরু হয় ওই যুবকের গোপনাঙ্গে। শেষ পর্যন্ত ব্যথা সহ্য করতে না পেরে চিকিৎসকের কাছে যান তিনি। এখানে হয়তো স্ত্রীর কোনো চতুরতা ছিল। তিনি চেয়েছিলেন স্বামীর ক্ষতি করতে। কিন্তু কেউ যদি সত্যিকার অর্থে কাউকে আকৃষ্ট করতে চান সেক্ষেত্রে কী করতে হবে।

দুটি উদাহরণ দেই। মধ্য ব্রাজিলে মেহিনাকু গ্রামে নারীরা তাদের প্রণয়প্রার্থীদের মধ্যে একজনকে বেছে নেবার এক সহজ পন্থা বের করেছেন।

একজন নারীর প্রেমপ্রার্থী যদি একাধিক হয়, তাহলে পুরুষদের সেই নারীকে উপহার দিতে হয় একটি মাছ। যার মাছ সবচেয়ে বড়, তিনিই জিতে নেবেন সেই নারীকে। গ্রামীণ অস্ট্রিয়াতে মেয়েদের একটা ঐতিহ্যবাহী নাচ আছে। যেখানে মেয়েরা নাচেন তাদের বগলে আপেলের টুকরো নিয়ে। সেই নারী হয়তো নাচের সময় সেখানে উপস্থিত কোনও পুরুষের প্রতি আকৃষ্ট হলেন। তখন তিনি সেই ঘামে-ভেজা আপেলের টুকরো বাড়িয়ে দেবেন তার দিকে। যদি পুরুষটিরও সেই নারীকে ভালো লেগে থাকে, তাহলে তাকে সেই আপেল থেকে এক কামড় খেতে হবে। সেটার স্বাদ কেমন হবে সহজেই অনুমেয়।

এদিকে যতই ভালো লাগুক না কেন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রেম ও যৌনতা নিষিদ্ধ করতে যাচ্ছে অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি। নারীদের প্রতি যৌন হয়রানির ঘটনা বেড়ে যেতে পারে, এমন আশঙ্কা সামনে রেখে বিষয়টি চিন্তা-ভাবনা শুরু করেছে ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ। নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হলে এটি হবে ব্রিটেনের দ্বিতীয় বিশ্ববিদ্যালয়। এক্ষেত্রে ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষণ বা তদারকির দায়িত্বে থাকা কারও বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গের অভিযোগ প্রমাণ হলে তার বিরুদ্ধে প্রাথমিক সতর্কতাসহ আর্থিক জরিমানা ও চাকরিচ্যুতির পদক্ষেপ নেওয়া হতে পারে।

বর্তমান বিধি অনুসারে শিক্ষকদের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে এ ধরনের সম্পর্ক থাকলে তা কর্তৃপক্ষকে জানানোর বাধ্যবাধকতা আছে। তবে শিক্ষক-স্টাফ ও ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে এ ধরনের সম্পর্কের ফলে বর্তমানে নারীর প্রতি সহিংসতা ও যৌন হয়রানির ঝুঁকি বেড়েই চলেছে। সেন্ট হাফ’স ইউনিভার্সিটি সম্প্রতি শিক্ষকদের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের প্রেম বা যৌনতা নিষিদ্ধ করেছে। এছাড়া ওরচেস্টার নামে আরেকটি কলেজ একই বিধি অনুসরণ করার চিন্তা করছে। যুক্তরাষ্ট্রে আইভি লিগ কলেজগুলো ছাড়াও হার্ভার্ড এবং ইয়েল শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে এ ধরনের সম্পর্ক নিষিদ্ধ করেছে। এ বছর ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডন রাসেল গ্রুপের শীর্ষ ২৪টি ইউনিভার্সিটির অন্যতম শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রথম এমন সম্পর্ক নিষিদ্ধ করে।

প্রিয়তমা, বাংলদেশে তোমার আমার পরকিয়া প্রেমও নিষিদ্ধ। তবুও প্রেম কবে কোন বাধা মেনেছে বলো তো। যেমনটি বাধা মানে না বুকে থাকা আড়ালের ওই সৌন্দর্যযুগল। তাইতো কবি নির্মলেন্দু গুণ লিখে ফেলেন, ‘কাল রাত তোমার ডান-স্তনটি আমি স্বপ্নে দেখেছি। আমি এতোটাই স্পষ্ট ক’রে স্বপ্নটা দেখেছি যে, তোমার স্তনের বোঁটা এখনও আমার চোখের মণিতে স্বচ্ছ-লাল-পদ্মকোরকের মতো ফুটে আছে’।

এই স্তন বা ক্লিভেজ দেখা নিয়ে বেশ খেপেছেন ভারতীয় নায়িকা শ্রীলেখা মিত্র। সম্প্রতি নিজের উষ্ণতা ছড়ানো ছবি পোস্ট করে তিনি লিখেছেন, ‘আমার চোখে হারাও, ক্লিভেজ দেখার জন্য সময় পাবে’।

আপাতদৃষ্টিতে মনে হতে পারে নিছক মজা করার জন্যই এই পোস্ট করেছেন তিনি। কিন্তু একটু তলিয়ে দেখলেই বদলে যেতে পারে ভাবনা। তিনি বলেছেন, এই ছবিতে আমার ক্লিভেজ বেরিয়ে রয়েছে। কিন্তু আমার প্রশ্ন, ছবি তোলার জন্য ক্লিভেজ ঢাকতে হবে কেন?

বছর পেরিয়ে গেল, শুরু হলো নতুন বছর। নতুন বছর কতটা সফলতা বা সৌভাগ্য বয়ে আনবে সময় বলে দেবে। তবে কে না চায় সফলতা। লাতিন আমেরিকার দেশ অর্থাৎ ব্রাজিল, মেক্সিকো, বলিভিয়া ইত্যাদি দেশগুলোতে বছরের শেষ দিকে নতুন অন্তর্বাস কেনার ধুম পড়ে যায়। বর্ষবরণ উদযাপনে নতুন অন্তর্বাস পরনে থাকলে আসন্ন বছরে ভালো কিছু পাবেন বলে বিশ্বাস করেন তারা। তবে এ ক্ষেত্রে শুধু নতুন অন্তর্বাস হলেই চলবে না। অন্তর্বাসের জন্য নির্দিষ্ট দুটি রঙ রয়েছে হলুদ আর লাল। আপনি যদি লাল পরেন, তাহলে ভালোবাসা পাবেন। আর হলুদ এনে দেবে সফলতা। তবে আমার জীবন কেমন চলছে জানতে চাইলে রবি ঠাকুরের মতো বলতে হয়,
‘চলেছে মন্থর তরী নিরুদ্দেশে, স্বপ্নের বোঝাই’
চলো সেই স্বপ্নে আমি তুমি হারাই।

শান্তনু চৌধুরী : সাংবাদিক ও সাহিত্যিক