বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২, ২১ আশ্বিন ১৪২৯

ডেঙ্গু পরিস্থিতি ভয়াবহ হচ্ছে, একদিনে রেকর্ড আক্রান্ত

প্রকাশিতঃ ২০ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৪:৩৫ অপরাহ্ন


ঢাকা : দেশে করোনাভাইরাসের প্রকোপ কমে এলেও আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে ডেঙ্গুর সংক্রমণ। গত ২৪ ঘণ্টায়ও মশাবাহিত এই রোগ নিয়ে নতুন করে ৪৩৮ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। যা এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ।

এ নিয়ে বর্তমানে এক হাজার ৫৬০ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তবে এই সময়ে ডেঙ্গুতে নতুন করে কোনো প্রাণহানি ঘটেনি।

মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের ইনচার্জ ডা. মো. জাহিদুল ইসলাম স্বাক্ষরিত ডেঙ্গুবিষয়ক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সকাল ৮টা থেকে মঙ্গলবার একই সময়ের মধ্যে সারাদেশে নতুন করে আরও ৪৩৮ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। নতুন ভর্তি হওয়া রোগীদের মধ্যে ৩১৫ জন ঢাকায় এবং ১২৩ জন ঢাকার বাইরে চিকিৎসাধীন।

বর্তমানে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে সর্বমোট এক হাজার ৫৬০ জন ভর্তি রয়েছেন। তাদের মধ্যে ঢাকার ৪৭টি ডেঙ্গু ডেডিকেটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন এক হাজার ১৯১ জন। বাকি ৩৬৯ জন ঢাকার বাইরে চিকিৎসা নিচ্ছেন।
স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্যমতে, চলতি বছরের প্রথম দিন (১ জানুয়ারি) থেকে ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন মোট ১২ হাজার সাতজন। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন ১০ হাজার ৪০২ জন। এছাড়া চলতি বছরে এডিস মশাবাহিত রোগ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত ৪৫ জন মারা গেছেন।

প্রতিবছর বর্ষাকালে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন শহরে ডেঙ্গুর প্রকোপ দেখা দেয়। ২০১৯ সালে দেশব্যাপী ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়েছিলেন এক লাখ এক হাজার ৩৫৪ জন। ওই সময়ে চিকিৎসক-স্বাস্থ্যকর্মীসহ প্রায় ৩০০ জনের মৃত্যু হয়েছিল।

২০২০ সালে করোনা মহামারিকালে ডেঙ্গুর সংক্রমণ তেমন একটা দেখা না গেলেও ২০২১ সালে সারাদেশে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হন ২৮ হাজার ৪২৯ জন। একই বছর ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ১০৫ জনের মৃত্যু হয়েছিল।

চলতি বছরে ডেঙ্গুর হটস্পট হয়ে উঠেছে কক্সবাজার। রোহিঙ্গারা ব্যাপকভাবে এতে আক্রান্ত হচ্ছেন। গত এক বছরে সংখ্যায় তা ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। ইতোমধ্যেই পর্যটন নগরী কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ও স্থানীয় মিলে এক বছরে ১১ হাজারের বেশি মানুষ ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়েছে। সেই সঙ্গে চলতি বছরে এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ২৩ জন।