বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

গ্রামীণফোনের নতুন-পুরনো সিম বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা

প্রকাশিতঃ ৬ নভেম্বর ২০২২ | ৫:২৬ অপরাহ্ন


ঢাকা : গ্রাহকসেবার মান না বাড়ানোর অভিযোগে দেশের সবচেয়ে বড় মোবাইল অপারেটর গ্রামীণফোনের সিম বিক্রির ওপর বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন-বিটিআরসি নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। প্রথমে অপারেটরটিকে কোনো ধরনের নতুন সিম বিক্রি করতে পারবে না বলে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল। পরে গ্রামীণফোনের অনুরোধে ১৩ লাখ অব্যবহৃত সিম বিক্রির সুযোগ দিয়েছিল কমিশন। কিন্তু আজ সেই সুযোগও রহিত করা হলো। ফলে গ্রামীণফোন নতুন-পুরনো কোনো সিমই বিক্রি করতে পারবে না।

রোববার (৬ নভেম্বর) বিটিআরসি সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।

বিটিআরসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, গ্রামীণফোনের বর্তমান গ্রাহক সংখ্যা (চলতি বছরের মে পর্যন্ত) আট কোটি ৪৯ লাখ ৫০ হাজার। এই বিপুলসংখ্যক ব্যবহারকারী থাকা সত্ত্বেও অপারেটরটির বিরুদ্ধে বারবার অভিযোগ এসেছে, তারা বিটিআরসি থেকে যে স্প্রেকট্রাম বরাদ্দ নিয়েছে তা পর্যাপ্ত নয়। এছাড়াও ঘনঘন কল ড্রপ, ফোরজি কভারেজ না বাড়ানো, বিটিআরসির পাওনা নিষ্পত্তি না করাসহ অপারেটরটির বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ করেছে কমিশন।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার গণমাধ্যমকে বলেছেন, আমরা চেষ্টা করেও গ্রামীণফোনের সেবার মান ভালো করার কোনো উদ্যোগ নিতে দেখিনি। তারা গ্রাহক বাড়াবে, কিন্তু সেবার মান বাড়াবে না- এটা হতে দেওয়া যাবে না। যতদিন না তারা সেবার মান ভালো করবে এবং তা সন্তোষজনক পর্যায়ে উন্নীত না হবে ততদিন গ্রামীণফোনের সিম বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা থাকবে।

গ্রামীণফোনের সিম বিক্রির নিষেধাজ্ঞা আসে গত ২৯ জুন। গ্রামীণফোনকে দেওয়া বিটিআরসির চিঠিতে বলা হয়েছিল, বিটিআরসির পরীক্ষায় গ্রামীণফোনের সেবার মান সন্তোষজনক মনে হয়নি। তাই প্রতিষ্ঠানটির সিম বিক্রি করার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়।

এদিকে আজ রোববার মোবাইল ফোন অপারেটররা কী মানের সেবা দিচ্ছেন তা যাচাইয়ে অত্যাধুনিক কিউওএস বেঞ্চমার্কিং সিস্টেম চালু করেছে বিটিআরসি।

বিটিআরসি কার্যালয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এই সিস্টেমের উদ্বোধন করেন।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, অপারেটরদের সেবার মান যাচাইয়ে বিটিআরসি আগে মাত্র একসেট যন্ত্রপাতির ওপর নির্ভরশীল ছিল। ২০১৬ সালে কেনা ওই যন্ত্রপাতি স্বাভাবিকভাবেই বর্তমান সময়ের চাহিদার উপযোগী নয়। তাই সারাদেশে ধারাবাহিকভাবে ও দ্রুত সময়ে বাইরে বা ভেতরে মানসম্মত সেবা যাচাইয়ে জার্মান কোম্পানি ‘রোডি অ্যান্ড স্যুয়ার্জ’ হতে এই উচ্চপ্রযুক্তির বেঞ্চমার্কিং যন্ত্রপাতি কিনেছে বিটিআরসি।

ইতোমধ্যে এসব যন্ত্রপাতি পরীক্ষামূলকভাবে ব্যবহার এবং তা পরিচালনায় জনবলকে প্রশিক্ষিতও করেছে নিয়ন্ত্রণ সংস্থাটি। পুরো সিস্টেমটিতে দুই সেট ভেইক্যাল মাউনটেড এবং দুই সেট ব্যাকপ্যাক কোয়ালিটি অব সার্ভিস যন্ত্রপাতি রয়েছে। এতে কেন্দ্রীয়ভাবে ডেটা প্রসেসিং এবং মনিটরিং ব্যবস্থা রয়েছে। রয়েছে স্মার্ট অ্যানালাইসিস এবং স্মার্ট মনিটর।

এই সিস্টেমের মাধ্যমে একইসঙ্গে দেশের চারটি স্থানে সেবার মান যাচাই করা যাবে। এতে একইসঙ্গে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর ভয়েস, ডেটা, ওটিটি, নেটওয়ার্ক কাভারেজ ইত্যাদি সেবার মান যাচাই করা যাবে।

দেশে বর্তমানে পাচটি টেলিকম অপারেটর রয়েছে। এর মধ্যে টেলিটক রাষ্ট্রায়ত্ত।