বৃহস্পতিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৫ ফাল্গুন ১৪২৬

আমার রক্ত কি পানির দামে বিক্রি হবে-প্রশ্ন এমপি বাদলের

প্রকাশিতঃ শনিবার, নভেম্বর ৪, ২০১৭, ১২:১৯ পূর্বাহ্ণ

চট্টগ্রাম : ‘এই পার্টির জন্য মানুষ মুখে রক্তের কথা বলে। আর আমি এই দলের জন্য রক্ত দিয়েছি। আমার গুলিবিদ্ধ পায়ের রক্ত মনসুর আলীর বাড়ির সামনে এখনো আছে। আমার রক্ত কি পানি হয়ে গেছে? পানির দামে বিক্রি হবে?’ দলের প্রতীক নিয়ে হাসানুল হক ইনুর সঙ্গে রশি টানাটানি প্রসঙ্গে এই কথা বলেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) একাংশের কার্যকরী সভাপতি মঈন উদ্দিন খান বাদল এমপি।

শুক্রবার সকালে নগরীর চান্দগাঁও আবাসিক এলাকার বাসভবনে একুশে পত্রিকা’র সাথে এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘প্রতীক যদি আমি পাই, ইনু সাহেব সুপ্রীম কোর্টে যাবেন, ইনু সাহেব পেলে আমিও তাই করবো। কাল ধরুন- ওনাকেই প্রতীকটা দিয়ে দিলো। আমি নিশ্চয় বসে থাকবো না। ওনি যেমন বলতে পারেন, আমিও বলতে পারি- ‘আই অ্যাম এ পারসন। সো আই হ্যাভ গট দ্যা ক্লেইম টু।’

২০১৬ সালের ১২ মার্চ জাসদের জাতীয় সম্মেলনে হাসানুল হক ইনু সর্বসম্মতভাবে একক প্রার্থী হিসেবে কণ্ঠভোটে সভাপতি পুনঃনির্বাচিত হন। সাধারণ সম্পাদক পদে শিরীন আখতার এমপি ও নাজমুল হক প্রধান এমপি’র নাম প্রস্তাব আসে। এসময় স্লোগান দেওয়াকে কেন্দ্র করে দুইপক্ষের মধ্যে উত্তেজনার একপর্যায়ে একটি অংশ সম্মেলনকক্ষ থেকে বেরিয়ে যান। পরে গোপন ব্যালটে শিরিন আখতার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। একই দিন জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে গিয়ে সমাবেশ করে শরীফ নুরুল আম্বিয়াকে সভাপতি, নাজমুল হক প্রধানকে সাধারণ সম্পাদক এবং মঈন উদ্দিন খান বাদল এমপিকে কার্যকরী সভাপতি ঘোষণা করে সম্মেলন ত্যাগ করা অংশটি। এর মাধ্যমে কার্যত জাসদের আরেকদফা বিভক্তি চুড়ান্ত হয়। সেই থেকে শুরু হয় ‘মশাল’ প্রতীক নিয়ে দুপক্ষের রশি টানাটানি, যা হাইকোর্টে মীমাংসার অপেক্ষায় আছে।

এ প্রসঙ্গে জাসদ কার্যকরী কমিটির সভাপতি মঈন উদ্দিন খান বাদল বলেন, ‘আমাদের দল ভেঙে গেছে। লক্ষ করলে দেখা যাবে, আমরা পাঁচজন নির্বাচিত প্রতিনিধি ছিলাম। আরেকজন সংরক্ষিত। দলটা যখন ভাগ হলো তখন দেখা গেলো ইনু সাহেবের সাথে তিনিসহ দুইজন গেছেন (আরেকজন শিরিন আখতার)। আমার সাথেও আছে দুইজন- আমি এবং নাজমুল হক প্রধান। আর দুইজন- কর্নেল তাহেরের স্ত্রী এবং বগুড়ার তানসেন চুপচাপ। তারা এদিকেও আসে না, ওদিকেও না। আমাদের মাঝে এখন দুইটা দল। কিন্তু সিট বা কনস্টিটিউন্সি নিয়ে আমাদের মাঝে কোনো বিবাদ বা বিতর্ক নাই। ইনু সাহেব তো এসে বোয়ালখালী চাচ্ছেন না, আমি গিয়ে কুষ্টিয়া চাইছি না। ইনু সাহেব কুষ্টিয়ায় চাইবেন। আমার বলার থাকলে আমার সিট নিয়ে আমি কথা বলবো। সেটা প্রধানমন্ত্রী বিবেচনা করবেন।

জাতীয় রাজনীতির গুরুত্বপূর্ণ এই নেতা আরও বলেন, ‘আমি ও ইনু সাহেব দুজনই ১৪ দলের সূচনাকারী। দল ভেঙে গেলেও দুজন এখনো ১৪ দলে। এর মধ্যেও মহাজোটে সাধ্যমতো ভূমিকা রাখার চেষ্টা করছি। আপনার পত্রিকার মাধ্যমে একটি কথা বলি- অমিতাভ বচ্চনের বাবার নাম হরিবংশ রাই বচ্চন। অনেকেই জানে না, তিনি অনেক বড় মাপের হিন্দি কবি ছিলেন। তার একটি কবিতা আছে- ‘আগর হোদা হে তো জিকির কিউ, আগর হোদা নিহি হে তো ফিকির কিউ’। আওয়ামী লীগ যদি বাংলাদেশের বাস্তবতায় জোট নিয়ে নির্বাচন করে আমি সেখানে আছি। আমি বলেছি, আমি মঈন উদ্দিন প্রার্থী হাজির। হাম হে, আর জিকির করার কিছু নেই।’

‘ধরুন- আগামীকাল আওয়ামী লীগ নেত্রী সিদ্ধান্ত নিলেন তিনি মহাজোট রাখবেন না। এককভাবে নির্বাচন করবেন। নিতেই পারেন এমন সিদ্ধান্ত। যদি তাই হয়, আমি প্রার্থী নই। আমি আওয়ামী লীগ কিংবা নৌকার প্রার্থী হবো না। আমি গরু, হাতি মশাল কী নিয়ে আসি তখন দেখা যাবে। সুতরাং আমাকে নিয়ে ফিকির করার কিছু নাই, চিন্তা করার কিছু নাই। তবে ইদানীং প্রধানমন্ত্রী প্রায় বলছেন, আপনারা জোটকে চোখের মনির মতো রক্ষা করুন। তাই বলি, জোট ভালোই এগোচ্ছে। তার বিরুদ্ধাচারণকারীরা যেমন জোটবদ্ধ হচ্ছেন, তিনিও জোটকে নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন।’ – বলেন চট্টগ্রাম-৮ আসনের সংসদ সদস্য মঈন উদ্দিন খান বাদল।

সাম্প্রতিক ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ে প্রধান বিচারপতির বিতর্কিত, অপ্রাসঙ্গিক পর্যবেক্ষণের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপের জন্য জাতীয় সংসদে মঈন উদ্দিন খান বাদলের প্রস্তাবই সর্বসম্মতভাবে গৃহীত হয়। জাতীয় স্বার্থ সংরক্ষণসহ বিভিন্ন ইস্যুতে যুক্তিতর্ক ও জোরালো বক্তব্যের মাধ্যমে সংসদ মাতিয়ে রাখেন বলে মঈন উদ্দিন খান বাদলের পার্লামেন্টারিয়ান হিসেবে পরিচিতি আছে সমগ্র দেশজুড়ে। আরেক পার্লামেন্টারিয়ান সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত’র মৃত্যুর পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংসদ মাতানোর জন্য আগামীতে অভিজ্ঞ পার্লামেন্টারিয়ান হিসেবে বাদলকে কাছে রাখতে চান-আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী সূত্রে প্রাপ্ত খবরটির দৃষ্টি আকর্ষণ করে বাদলকে প্রশ্ন করা হয়- আওয়ামী লীগ একক নির্বাচন করেও যদি আপনাকে তাদের দল থেকে নির্বাচন করাতে চায় সেক্ষেত্রে আপনার অবস্থান কী হবে?

তাঁর জবাব- ‘আমার এ ধরনের কোনো ধারণা নেই। ধারণাপ্রসূত বিষয় নিয়ে আমি কোনো মন্তব্য করতে চাই না।’

[চলবে]

# রোহিঙ্গা সুরক্ষায় এমপি বাদলের প্রস্তাবটিই আন্তর্জাতিকভাবে এগোচ্ছে
# মহিউদ্দিনের সমালোচনায় গণআকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন থাকলে তাতে অন্যায় নেই : গৃহকর ইস্যুতে বাদল
# # # কালুরঘাট সেতু নিয়ে নিন্দুকদের জবাব দিলেন বাদল, বললেন এই আমলেই কাজের সূচনা