বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

চমেকের ৬০ বছর পূর্তি উৎসব পালিত

প্রকাশিতঃ Tuesday, September 20, 2016, 5:02 pm

cmc-ctgচট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের (চমেক) ৬০ বছর পূর্তি উৎসব পালিত হয়েছে। মঙ্গলবার চমেকের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে এ উপলক্ষে আয়োজন করা হয় বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের। এর আগে সকালে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের মাঠ থেকে শোভাযাত্রা বের হয়। এরপর মূল মঞ্চে কেক কাটেন চসিক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন। কেক কাটার পর বেলুন উড়িয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করা হয়।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন মেয়র বলেন, ‘হাজার হাজার চিকিৎসক এ প্রতিষ্ঠান থেকে বের হয়ে আজ জাতির সেবায় নিয়োজিত রয়েছে। আবার বৃহত্তর চট্টগ্রামে কোটি মানুষ এ হাসপাতালের সেবা নিয়ে বেঁচে আছে। ৬০ বছর পূর্তিতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের সাথে সম্পৃক্ত সকলকে আমি অভিবাদন জানাই।’

বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) যুগ্ম সম্পাদক ফয়সাল ইকবাল চৌধুরীর সঞ্চালনায় এ সময় উপস্থিত ছিলেন চমেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক সেলিম মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর, বিএমএ চট্টগ্রা সভাপতি ডা. মুজিবুল হক খান, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শরীফ, চমেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জালাল উদ্দিন প্রমুখ।

এ আয়োজন থেকে আজীবন সম্মাননা দেওয়া হয় ডা. এলএ কাদেরী, মুক্তিযোদ্ধা ডা. শাহ আলম বীর উত্তম (মরণোত্তর), অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত, সাবেক মন্ত্রী ডা. আফছারুল আমীন, ডা. মোজাম্মেল হক, ডা. বদিউজ্জামান ভূঁইয়া ও অধ্যাপক ডা. আবুল ফয়েজকে।

এ সময় ডা. এলএ কাদেরী বলেন, ‘এ মেডিকেল কলেজের জন্ম দেখেছি। পাহাড় কেটে এটি করা হয়েছে। ১৯৫৭ সালে প্রথম কোর্স চালু হলো। ১৯৫৯ সালে ভর্তি হলাম। মেডিকেল কলেজ আর আমি এক হয়ে গেছি। আজ আমি এত আনন্দিত যে চোখে জল এসে গেল।’

ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত বলেন, ‘চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ চত্বর আমাদের দেয়নি এমন কিছু নেই। আমার স্বাধীনতা পদক চমেক শিক্ষক-ছাত্রদের উৎসর্গ করছি।’ সাবেক মন্ত্রী ডা. আফছারুল আমীন বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীন বাংলা বিপ্লবী বেতার কেন্দ্রে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে।