শুক্রবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ৩ কার্তিক ১৪২৬

‘বন্ধু একটু দাও সাড়া, কেনা কি যায় একটি গাছের চারা’

প্রকাশিতঃ শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৯, ১২:২৯ পূর্বাহ্ণ


চট্টগ্রাম : যারা দেদারচে বৃক্ষ নিধন করছে, বন ধ্বংস করছে তাদের মৃত্যুদণ্ড হওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক কাউন্সিলর নারীনেত্রী অ্যাডভোকেট রেহানা বেগম রানু।

বৃহস্পতিবার রাতে নগরের আউটার স্টেডিয়ামে ‘সবুজ মেলায়’ আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে অ্যাডভোকেট রেহানা বেগম রানু বলেন, বন্ধু একটু দাও সাড়া, কেনা কি যায় একটি গাছের চারা। আজকে বন উজাড় করা হচ্ছে। পাহাড় কেটে ফেলা হচ্ছে। নদী-পুকুর ভরাট করা হচ্ছে। এর ফলে আমাদের সন্তানরা সাঁতার কাটতে পারছে না, খেলাধুলা করতে পারছে না।

তিনি আরো বলেন, আমাদের সন্তানদের বাঁচাতে বৃক্ষরোপনের কোন বিকল্প নেই। সবুজকে ভালোবাসুন, দীর্ঘায়ু হবেন। আমরা সবাই দুটি করে গাছ লাগালে ভবিষ্যতে আমাদের এই দেশকে সবুজ বাংলাদেশ উপহার দিতে পারবো। একইসাথে চট্টগ্রামকেও।

চসিক প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ স্থপতি একেএম রেজাউল করিমের সভাপতিত্বে ও শাহাবুদ্দিন মজুমদারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে একুশে পত্রিকা সম্পাদক আজাদ তালুকদার, চসিক বনায়ন কর্মকর্তা ময়নুল হোসেন চৌধুরী জয়, ডা. শায়লা আবেদীন রিমা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে মেলার স্টলগুলো পরিদর্শন ও শ্রেষ্ঠ নার্সারি নির্বাচন করেন রেহানা বেগম রানু।

প্রসঙ্গত, পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা ও আগামী প্রজন্মের জন্য নগরকে বাসযোগ্য করে গড়ে তুলতে চলছে ১৫ দিনব্যাপী ‘সবুজ মেলা’। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে ও তিলোত্তমার সহযোগিতায় এই সবুজ মেলায় ৫৪টি স্টল স্থান পেয়েছে।

গত ২৫ আগস্ট খেকে মেলা শুরু হয়। মেলায় বনরুপা নার্সারি, ন্যাশানাল নার্সারি, বাংলাদেশ নার্সারি, কাশবন নার্সারি, সবুজ বিপ্লব নার্সারি, এস বি নার্সারি, চিটাগাং নার্সারি, পুষ্প নার্সারি, ব্যারেক নার্সারি, ফতেয়াবাদ নার্সারি, বাহাদুর নার্সারি, চন্দ্রনগর নার্সারি, আরণ্য নার্সারি, নিউ কসমো নার্সারি, কসমো নার্সারি, পুষ্পকলি নার্সারি। এছাড়া হস্তশিল্প, কুটির শিল্প, হারবাল, বিডি ক্লিন, বনসাই, বাগান সরিষা, সাঁঝের পিঠা, মধুসহ ইত্যাদি স্টলগুলো স্থান পায়।

চলমান এই মেলায় প্রায় ২ কোটি টাকার ফলজ, বনজ ও ওষুধি গাছের চারা বিক্রি হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

অন্যদিকে মেলাকে প্রাণবন্ত করতে আয়োজন করা হয় সংগীতানুষ্ঠান। শিল্পীদের সুরের মুর্ছনায় আনন্দে উদ্ভাসিত হন দর্শকস্রোতা।