মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

হবিগঞ্জ : প্রাণহীন দেয়ালে গল্পে গল্পে মুখরিত করছে চিত্রশিল্প

প্রকাশিতঃ মঙ্গলবার, আগস্ট ১৭, ২০২১, ১২:৩৩ অপরাহ্ণ

আজহারুল ইসলাম চৌধুরী মুরাদ : ‘বইয়ের পাতায় প্রদীপ জ্বলে/বইয়ের পাতায় স্বপ্ন বলে।’ কবিতার এই চমৎকার পংক্তিগুলো নিয়ে দেয়ালচিত্র দেখার পর সারোয়ার পরাগের মন্তব্য- ‘দেখে মনে হচ্ছে যেন দেয়ালে দেয়ালে স্বপ্ন আঁকা হচ্ছে।’ হবিগঞ্জ শহরের কালিগাছতলা এলাকার কয়েকটি দেয়ালে বইপড়ার গুরুত্ব নিয়ে বেশকিছু দেয়াল লিখন বা অঙ্কন চোখে পড়ে। খোঁজ নিয়ে জানা যায় ‘মুক্তাঞ্চল সাহিত্যচর্চা কেন্দ্র, হবিগঞ্জ’ নামে একটি সাহিত্য সংগঠনের সদস্যরা দেয়ালচিত্রগুলো এঁকেছে।

‘মনেরে আজ কহ যে ভালো মন্দ যাহাই আসুক সত্যেরে লহ সহজে’, ‘বইয়ের দোকান পরখ করলেই বেবাক সমাজ কোনদিকে যাইতাছে টের পাওয়া যায়’, ‘সাহিত্য সমৃদ্ধ হোক জীবন’, ‘কলম হোক শক্তি’- বই ও বইপড়া নিয়ে এসব উক্তিও দেয়ালচিত্রে তুলে ধরা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে হবিগঞ্জ প্রগতি লেখক সংঘের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শিক্ষক সারোয়ার পরাগ বলেন, ‘শহরের প্রায় সবকটা দেয়াল রাজনৈতিক, নির্বাচনী ও বিজ্ঞাপনের পোস্টারে ঠাসা। এরই মাঝে এরকম দেয়াল লিখন আমার কাছে মনে হয় যেন মরুভূমির বুকে ঝর্ণার মত।’

এখন পর্যন্ত ১৯ টি দেয়ালচিত্র আঁকা হয়েছে। অনুমতি পেলে তারা পুরো শহরে এই কাজ করতে চায় বলে জানিয়েছে বিকেজিসি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থী ও এ দেয়ালচিত্র আঁকার সাথে যুক্ত অদ্বিতীয় ধর পদ্য। ‘বই পড়ার প্রতি সবার আগ্রহ বৃদ্ধির লক্ষ্যে আমরা এই কার্যক্রম পরিচালনা করছি’- বলেছে পদ্য।

সংগঠনটির আহবায়ক কলেজ শিক্ষার্থী সম্পন্ন মহাপাত্র বলেন, ‘আমরা স্কুল ও কলেজ পর্যায়ের ৪০ জনের মতো একটি টিম দেয়ালচিত্র আঁকছি। দেয়ালচিত্র আঁকা ছাড়াও আমরা নিয়মিত পাঠচক্র, কবিতার আসর, বইপড়া উদ্ব্দ্ধুকরণে কাজ করি।’

দেয়ালচিত্র কার্যক্রম দেখে মুগ্ধতা প্রকাশ করে হবিগঞ্জ চারুকলা একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক আশীষ আচার্য্য বলেন, ‘ধন্যবাদ জানাই মুক্তাঞ্চলের ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ নেওয়ার জন্য। আমি ব্যক্তিগতভাবে হবিগঞ্জ শহরের চিত্র শিল্পের প্রসারের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি। প্রাণহীন দেয়ালে গল্পে গল্পে মুখরিত করে তুলতে পারে চিত্রশিল্প। আমাদের দৈনন্দিন জীবনে ও সমাজে এর ইতিবাচক ব্যবহারের মধ্য দিয়ে চারুকলা পূর্ণতা লাভ করে। বর্তমানে আমরা খুবই যান্ত্রিক হয়ে পড়ছি। এ সময় একমাত্র শিল্প-সাহিত্য চর্চাই পারে মানবমনে নবধারার সঞ্চার ঘটাতে। ফুলের সুগন্ধ যেমন মনকে স্নিগ্ধ করে তুলে, তেমনি চোখে সুন্দর দেখাও মনের সুন্দর ভাবনাকে জাগিয়ে তুলে। সমাজের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ আমাদের তরুণ প্রজন্ম। হবিগঞ্জ শহরের সকলকে আহ্বান জানাচ্ছি আমাদের শহরকে সাঁজাতে মুক্তাঞ্চলের তরুণদের পাশে থাকার জন্য।’

জীবন সংকেত নাট্যগোষ্ঠীর সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) মাঝহারুল ইসলাম পাভেল বলেন, ‘শিল্পমাধ্যমগুলো খুব সীমিত পরিসরে হলেও আমাদের মধ্যে বিরাট প্রভাব ফেলে। একসময় হবিগঞ্জ শহরের দেয়ালগুলোতে সুন্দর সুন্দর উক্তি থাকত। কিন্তু এখন তা চোখে পড়েনা। দেয়ালচিত্রের মাধ্যমে সুন্দর বার্তাগুলো স্বপ্নের মত ছড়িয়ে পড়ুক।’